সুদহারের ব্যবধান (স্প্রেড) কমায়নি দেশি-বিদেশি ৯টি ব্যাংক

0

নিজস্ব  প্রতিবেদক:  

ঋণ ও আমানতের সুদহারের ব্যবধান (স্প্রেড) কমায়নি দেশি-বিদেশি ৯ ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংক বারবার নির্দেশনা দিয়ে আসছে স্প্রেড পাঁচ শতাংশের নিচে রাখতে। কিন্তু তা মানছে না বেশ কয়েকটি ব্যাংক। যদিও মুক্তবাজার অর্থনীতিতে ব্যাংকগুলো নিজস্ব নীতিমালার আলোকে ঋণ ও আমানতে সুদহার নির্ধারণ করতে পারে।

গত নভেম্বর মাস শেষে পাঁচটি বিদেশি এবং চারটি বেসরকারি ব্যাংকের স্প্রেড পাঁচ শতাংশীয় পয়েন্টের বেশি ছিল। সবচেয়ে বেশি স্প্রেড রয়েছে বহুজাতিক স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ডের। এরপরেই রয়েছে বেসরকারি খাতের ব্র্যাক ব্যাংকের। বাংলাদেশ ব্যাংকের সর্বশেষ প্রতিবেদনে এ সব তথ্য জানা গেছে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, গত নভেম্বরে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলো ঋণের ক্ষেত্রে গড়ে ৮ দশমিক ২৯ শতাংশ হারে সুদ আদায় করেছে। আর আমানতের বিপরীতে দিয়েছে ৪ দশমিক ৩৯ শতাংশ সুদ। স্প্রেড দাঁড়িয়েছে ৩ দশমিক ৯ শতাংশ। তবে বিশেষায়িত ব্যাংকের স্প্রেড সবচেয়ে কম; যা মাত্র দুই দশমিক ৮১ শতাংশ। বিশেষায়িত বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক আমানতের বিপরীতে গড়ে ৫ দশমিক ৫ ও ৮ দশমিক ৫ শতাংশ সুদ দিয়েছে। আর ঋণের ক্ষেত্রে সুদ নিয়েছে ৮ দশমিক ৭ ও ৮ দশমিক ৮৮ শতাংশ।

বিশ্লেষকরা বলছেন, অনেক ব্যাংকের কাছে প্রচুর পরিমাণে অলস টাকা পড়ে আছে। বিনিয়োগ স্থবিরতার কারণে উদ্যোক্তারা ব্যাংক থেকে ঋণ নিচ্ছে না। আবার খেলাপী ঋণের পরিমাণও বাড়ছে। এমন পরিস্থিতিতে ব্যাংকের ব্যয় নির্বাহ করাই কঠিন হয়ে পড়ছে। এত কিছুর পরও ভাল মুনাফা অর্জন করার টার্গেট ব্যাংকগুলোর। ফলে আমানতকারীদের দিকে খেয়াল না রেখেই ভাল মুনাফা অর্জনের স্বার্থে ঋণ ও সুদহারের ব্যবধান কমাচ্ছে না ব্যাংকগুলো।

প্রতিবেদনে দেখা যায়, বেসরকারি খাতের চার ব্যাংকের স্প্রেড পাঁচ শতাংশীয় পয়েন্টের ওপর অবস্থান করছে। গত নভেম্বর শেষে বেসরকারি ব্যাংকগুলো ঋণের ক্ষেত্রে গড়ে ৯ দশমিক ৬১ শতাংশ হারে সুদ আদায় করেছে। আমানতের বিপরীতে দিয়েছে ৫ দশমিক ২৭ শতাংশ সুদ; স্প্রেড দাঁড়িয়েছে ৪ দশমিক ৩৪ শতাংশীয় পয়েন্ট। বিদেশী ব্যাংকগুলোর স্প্রেড এখনও পাঁচ শতাংশীয় পয়েন্টের ওপরে রয়েছে। বিদেশি ব্যাংকগুলো আমানতের বিপরীতে ১ দশমিক ৬৬ শতাংশ সুদ দিয়েছে। অন্যদিকে ঋণের বিপরীতে আদায় করেছে ৮ দশমিক ১১ শতাংশ সুদ। এ খাতের ব্যাংকগুলোর স্প্রেড সবচেয়ে বেশি, যা ৬ দশমিক ৪৫ শতাংশীয় পয়েন্ট।

স্প্রেড পাঁচ শতাংশীয় পয়েন্টের ওপরের ব্যাংকগুলো হলো বিদেশী ব্যাংকগুলো হলো- স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড, স্টেট ব্যাংক অব ইন্ডিয়া, উরি ব্যাংক, এইচএসবিসি ও সিটি ব্যাংক এনএ। বেসরকারী ব্যাংকগুলো হলো দ্য সিটি ব্যাংক লিমিটেড, ডাচ-বাংলা ব্যাংক, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড ও উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড। বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনের তথ্যমতে, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ডের আমানতের বিপরীতে গড়ে এক দশমিক ২২ শতাংশ সুদ দিয়েছে। আর ঋণের ক্ষেত্রে ব্যাংকটি ৯ দশমিক ৭১ শতাংশ সুদ নিয়েছে। বিদেশী খাতের এ ব্যাংকটির স্প্রেড দাঁড়িয়েছে ৮ দশমিক ৪৯ শতাংশ। এছাড়া ব্র্যাক ব্যাংক আমানতের বিপরীতে সুদ দিয়েছে ৪ দশমিক ৩ শতাংশ। আর ঋণের বিপরীতে নিয়েছে সুদহার ১১ দশমিক ৭৬ শতাংশ। বেসরকারী খাতের এ ব্যাংকের স্প্রেড দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ৭৩ শতাংশ।

কাওছার আক্তার মুক্তা// এসএমএইচ// বুধবার ১০ জানুয়ারি ২০১৮ ২৭ পৌষ ১৪২৪

Share.

Comments are closed.