‘বন্দুকযুদ্ধে’ মামা-ভাগ্নেসহ নিহত ৬

0

নিজস্ব প্রতিবেদক :

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চলমান মাদকবিরোধী অভিযানে আজও কথিত বন্দুকযুদ্ধে ৫ জেলায় ৬ জন নিহত হয়েছে।
মঙ্গলবার রাতে কুষ্টিয়া, কেরানীগঞ্জ, নাটোর,যশোর ও লক্ষীপুরে এ সব বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।
কুষ্টিয়াকুষ্টিয়ার মিরপুরে মাদকবিরোধী অভিযান চলাকালে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ফুটু ওরফে মোন্না (৩৫) ও রাসেল আহম্মেদ (৩০) নামে দুই যুবক নিহত হয়েছেন।
র‌্যাবের দাবি, নিহতরা এলাকার দুই শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। নিহত ফুটু ওরফে মোন্না কুষ্টিয়া শহরের রাজারহাট মোড় এলাকার মৃত আহম্মদ আলীর ছেলে ও রাসেল আহম্মেদ একই এলাকার রবিউল ইসলামের ছেলে। সম্পর্কে নিহত দুইজন আপন মামা-ভাগ্নে। বন্দুকযুদ্ধে র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছেন।
বুধবার ভোর ৫টার দিকে উপজেলার আমবাড়িয়া ইউনিয়নের বালুচর সংলগ্ন জোয়াদ্দারের ইটভাটার কাছে এ ‘বন্দুকযুদ্ধের’ ঘটনা ঘটে।

ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি নাইম এমএম পিস্তল, একটি দেশি ওয়ান শুটারগান, ২টি কার্তুজ, ১২ রাউন্ড গুলি, ৪০ লিটার চোলাই মদ, ১৫০০ পিছ ইয়াবা ও ২৩০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার করেছে র‌্যাব সদস্যরা।
র‌্যাব-১২ এর কুষ্টিয়া কমান্ডার মোহাইমেনুর রশীদ জানান, ভোর ৫টার দিকে মিরপুর উপজেলার আমবাড়িয়া ইউনিয়নের জোয়াদ্দারের ইটভাটার কাছে মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে একদল মাদক ব্যবসায়ী অবস্থান করছে এমন গোপন সংবাদ আসে। এর ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি দল ঘটনাস্থলে অভিযান চালায়। র‌্যাবেরর উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক ব্যবসায়ীরা তাদের ওপর গুলি চালায়। এসময় র‌্যাবও পাল্টা গুলি করে।
একপর্যায়ে মাদক ব্যবসায়ীরা পিছু হটলে আহতাবস্থায় ফুটু ও রাসেল নামে দুই শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে ভোর ৬টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।
নিহত ওই দুই মাদক ব্যবসায়ী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর ও এনএসআই’র তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ী বলে জানান র‌্যাবের ওই কর্মকর্তা।
কেরানীগঞ্জ: কেরানীগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে এক মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছেন। নিহত সেই মাদক বিক্রেতার নাম মো. নুরা ওরফে নুরু (৪৫)।
বুধবার ভোরে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ডায়মন্ড মেলামাইন কারখানার সামনে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।
মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

নাটোর: নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ওসমান গণি (৩৮) নামে এক মাদক বিক্রেতা নিহত হয়েছেন। নিহত ওসমান উপজেলার গুরুমশইল গামের মৃত মনসুর আলীর ছেলে।

মঙ্গলবার রাত ১১ টা ৪০ মিনিটে উপজেলার বাহিমালি এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন দুই র‌্যাব সদস্য।আহতরা হলেন- সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মনজুর আহমেদ ও কনস্টেবল এনামুল হক।র‍্যাব-৫, নাটোর ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর শিবলী মোস্তফা জানান, এ সময় ঘটনাস্থল থেকে বিপুল পরিমাণ মাদক, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

যশোরযশোরের মণিরামপুরে গুলিবিদ্ধ হয়ে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। পুলিশের দাবি, দুই দল ডাকাতের বন্দুকযুদ্ধে ওই যুবকের মৃত্যু হয়। ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান উদ্ধার করা হয়েছে।
মণিরামপুর থানার ওসি মোকাররম হোসেন জানান, বুধবার ভোরে যশোর-রাজগঞ্জ সড়কের কোদলাপাড়া জামতলা এলাকার রাস্তার পাশ থেকে ওই যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার করে খেদাপাড়া ফাড়ির পুলিশ। তবে মরদেহের পরিচয় পাওয়া যায়নি। দুইদল ডাকাতের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধের সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে ওই যুবক মারা গেছে বলে তিনি ধারণা করছেন।
পুলিশ লাশ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। ঘটনাস্থল থেকে একটি পাইপগান উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান ওসি।

এছাড়া  লক্ষীপুরে বন্দুকযুদ্ধে ১ নিহত হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি।

সাব্বির// এসএমএইচ//১১ই জুলাই, ২০১৮ ইং ২৭শে আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Share.

Comments are closed.