চট্টগ্রামে অলি-গলিতে বেড়েছে বখাটেদের উৎপাত,বাড়ছে খুন-ধর্ষন

0

সাব্বির আহমেদ, চট্টগ্রাম:

চট্টগ্রামে কয়েক বখাটের উৎপাত উদ্বিগ্নতার কারণে পরিণত হয়েছে। বিভিন্ন আবাসিক এলাকা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে শুরু করে অলিগলিতে পর্যন্ত বখাটেদের উৎপাতে অতিষ্ট এলাকাবাসী। এসব বখাটে কিশোর-যুবকরা আবার নানা অপরাধে জড়াচ্ছে নিজেদের। তাদের হাতেই ঘটছে খুন, ধর্ষন, অপহরণ, চিনতাই সহ নানা অপরাধ মুলক ঘটনা।
গত সপ্তাহে (৭ জুলাই) ডিবি পুলিশ পরিচয়ে বাসায় ঢুকে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে চট্টগ্রামে। ঘটনায় জড়িত ৫ যুবককে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। এর আগে গত ২৭ জুন ভোরে নগরীর বাকলিয়া শহীদ শাহ রোড়ের ল্যান্ডমার্ক সোসাইটির লায়লা ভবনে খুন হন সৌদি প্রবাসী নাছির উদ্দিনের ১২ বছর বয়সী ৬ষ্ট শ্রেণী পড়–য়া কন্যা ইলকাম বিনতে নাছির। একই এলাকায় গত ৬ মাসে বেশ কয়েকটি হত্যাকা-ের ঘটনা ঘটে। যার প্রত্যেকেটিতে কিশোর অপরাধি ও বাখাটেদের হাত রয়েছে বলে মনে করছে পুলিশ।
এ বিষয়ে চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ মানবকন্ঠকে জানান, এক ছাত্রী কয়েকজন বখাটে যুবকের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার রাতে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন এবং পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করেছেন। অভিযোগ পেয়েই যাচাই করে রাতভর অভিযানে ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, চট্টগ্রাম নগরীর বেশ কিছু এলাকায় সাম্প্রতিক সময়ে বখাটেদের উৎপাত দেখা দিয়েছে। দিনের একটা নির্ধারিত সময়ে এলাকাভিত্তিক এসব বখাটেরা আড্ডায় লিপ্ত হয়। পাশ দিয়ে কোনো মেয়ে বা নারী শিক্ষার্থী হেঁটে যাওয়ার সময় ইভটিজিংয়ের শিকারও হতে হয় এসব বখাটেদের কাছে। আবার এলাকায় প্রভাব বিস্তারের জন্য এসব বখাটে একযোগ হয়ে শোডাউনও করে। বাকলিয়া, পাহাড়তলী, পতেঙ্গাসহ কয়েকটি এলাকায় সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত বখাটেদের দখলে থাকে। সন্ধ্যার পর এসব এলাকার নারীরা ঘর থেকে বের হওয়ার সাহস হারিয়ে ফেলে।
কথা হলে পাহাড়তলী এলাকার বাসিন্দা গৃহিনী রোকসানা আলম মানবকণ্ঠকে বলেন, এলাকার কয়েকজন বখাটে ছেলের কারণে ঘর থেকে বের হওয়াটাও দায় হয়ে দাড়িয়েছে। দিন দিন অপরাধ বাড়ছে। রাস্তায় বের হলে বিভিন্ন ধরনের বাজে মন্তব্য শুনতে হয়।
স্থানীয়রা মানবকন্ঠকে বলেন, এসব এলাকায় উঠতি বয়সের কিশোর-যুবকেরা দল বেঁধে শিক্ষা প্রতিষ্টান ও গলির মূখে এবং মোড়ে মোড়ে অবস্থান নেয়। আবাসিক এলাকা ও বিভিন্ন বাসা থেকে তরুণী ও মহিলারা রাস্তায় চলাচলের সময় নানা ধরনের ইভটিজিং করে। বিশেষ করে স্কুল কলেজের ছাত্রীদের বেশি উক্ত্যত্ত করা হয়। উক্তত্যকারীর অধিকাংশই বখাটে, বেকার এবং অশিক্ষত যুবক।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক শিক্ষার্থী জানান, কোন তরুণ-তরুণী বাকলিয়া বিভিন্ন এলাকা দিয়ে চলাচলে যেন অঘোষিত নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে বখাটেরা। শিক্ষার্থী, আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধু-বান্ধব অর্থাৎ তরুণ-তরুণী, একসঙ্গে চলাফেরা করা দায় হয়ে পড়েছে। বখাটেরা আটকে তাদেও হেনস্তা করছে।
স্থাণীয় মহল্লা কমিটির সদস্যরা মানবকন্ঠকে বলেন, তরুণ শিক্ষার্থীদের (ছেলে-মেয়ে) একসঙ্গে চলাচলের সময় বখাটের রোষানলে পড়তে হয়। এমনকি তরুণ-তরুণীদের ব্যাগ তল্লাশি করে সর্বস্ব কেড়ে নেয়। গত সপ্তাহে সৈয়দ শাহ রোড এলাকায় দুই শিক্ষার্থীর মোবাইল ও টাকা পয়সা হাতিয়ে নেওয়া হয়।

সাব্বির// এসএমএইচ//১৫ই জুলাই, ২০১৮ ইং ৩১শে আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Share.

Comments are closed.