কোরবানি উপলক্ষে চট্টগ্রাম নগরে হরদম চাটা, পাটি ও কাঠের গুড়ি বিক্রির ধুম

0

সাব্বির আহমেদ,চট্টগ্রাম:

পবিত্র কোরবানি কে সামনে রেখে চট্টগ্রাম নগরীর লোকজনের মাঝে কোরবানের তৈজষপত্র সমাগ্রী জোগাড়ের তোড়জোড় শুরু হয়ে গেছে।  এরি মাঝে পশু কোরবানী পাশাপাশি মানুষ লাই(বেতেঁর টুকুরী), ডুলা, চেদী (গাছের গুড়ি) চাটা, পাঠি অর্থাৎ তৈজষ পত্র সংগ্রহে ব্যস্ত হয়ে গেছে কোরবান দেয়া লোকজন। একদিকে দা, ছুরি,বটি সংগ্রহের পালা শেষ, অপরদিকে গরু জবাইয়ের পর কোরবানের মাংস চোলায় দেয়ার পূর্বে কাটা থেকে শুরু করে ধোয়া বাছা পর্যন্ত লাই ডুলা পাটি চেদী অত্যন্ত প্রয়োজনীয় সামগ্রী।
সরেজমিনে নগরের একাধিক কোরবানীর পশুর বাজারে গিয়ে দেখা গেছে কোরবানের পশু ক্রয় বিক্রয়ের পাশাপাশি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা লাই, খারাং, পাটি, চাটা চেদী এসব জিনিষ বিক্রি করছে।
নগরীর পাহড়লীস্থ সাগরিকা পশুর বাজারে কথা হয় বান্দরবন থেকে আসা চেদী বিক্রেতা নুরুল আলমের সাথে। তিনি জানান বান্দর বনের পাহাড়ি এলাকা থেকে অনেক কষ্টে কাঠ সংগ্রহ করে গাছের গুড়ি(চেদী) বানিয়ে সে গুলো বিক্রির জন্য চট্টগ্রাম শহরে নিয়ে আসা হয়েছে। প্রতিটি কাঠের গুড়ি ১০০-১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তিনি জানান মোটা মুটি ভাল বিক্রি হচ্ছে।
একই ভাবে কথা হয় আনোয়ারা থেকে আসা লাই, খারাং(বাশেঁর ঝুড়ি)বিক্রেতা বদি আলমের সাথে। তিনি বলেন বাপ দাদার পেশা হিসেবে বিগত ১৫ জছর ধরে তিনি এসব হাতের তৈরী জিনিষ পত্র বিক্রি করে আসছেন। এবার কোরবানের সময় আগে থেকেই বাশঁ সংগ্রহ করে বেঁত দিয়ে তৈরী করা লাই (বেঁতের ঝুড়ি), ডুলা নিয়ে সাগরিকা বাজারে এসেছি। বাশের মুল্য বিশী হওয়াতে এসব বিক্রি করে এখন পোষায় না। এর পর ও না পারতে আসা । তবে বিক্রি হচ্ছে ভাল। এক জোড়া খারাং(ঝুড়ি) ২০০-৩০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
নগরীর ফইল্যাতলী বাজারে কথা হয় রাউজান থেকে আসা পাটি বিক্রেতা দুলাল দাশের সাথে। তিনি জানান অনেক কষ্ট করে পাটি আর চাটা সংগ্রহ করে ফইল্যাতলী বাজারে নিয়ে আসা হয়েছে। প্রতিটি পাটি ৩০০-৪০০ টাকায় আর চাটা ১০০-১৫০ টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে।
এদিকে ফইল্যাতলী বাজারে কথা হয় মাঈনুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তির সাথে। তিনি বলেন এবার সে একটি গরু কোরবানি দেবেন। কোরবানির পশু জবাইয়ের আগে এসব প্রয়োজনীয় তৈজষপত্র জোগাড় করে রাখতে হয়। তাই আগে ভাগেই এসব কিনতে বাজারে আসা। চাহিদা মত সব জিনিষই কিনলাম। তবে দাম একটু বেশী।
উল্লেখ্য কোরবানীর পশু জবাইয়ের পর চোলায় দেয়ার আগে মাংস কাটা, বাছা, ধুয়ার ক্ষেত্রে এসব তৈজষ খুবেই দরকারী।

সাব্বির// এসএমএইচ//২১শে আগস্ট, ২০১৮ ইং ৬ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Share.

Comments are closed.