মন জোড়ানো অপরুপ সৌন্দর্য্যের কাপ্তাই লেক

0

সাব্বির আহমেদ,চট্রগ্রাম:

কাপ্তাই লেক বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের রাঙামাটি জেলার একটি কৃত্রিম হ্রদ। কর্ণফুলি পানি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য ১৯৫৬ সালে কর্ণফুলি নদীর উপর কাপ্তাই বাঁধ নির্মাণ করা হলে রাঙামাটি জেলার ৫৪ হাজার একর কৃষি জমি ডুবে যায় এবং এই অপরুপ সৌন্দর্য্যের হ্রদ সৃষ্টি হয়।
কাপ্তাই হ্রদ মূলত কর্ণফুলী হ্রদের আঞ্চলিক নাম। ২৫৬ বর্গমাইল আয়তনের দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহত্ এই কৃত্রিম হ্রদ দেশি-বিদেশি পর্যটকদের অন্যতম আকর্ষণ। উঁচু-নিচু পাহাড়-পর্বত, পাহাড়ি ঝরনাধারা, আঁকাবাঁকা পাহাড়ি রাস্তা, অথৈ পানি আর সবুজের সমারোহ, গাঢ়-সবুজ বন, গাছ-গাছালি ফুল-ফল আর উপজাতিদের জীবনধারা কাপ্তাই লেকের অন্যতম বৈশিষ্ট্য।
অপরুপ সৌন্দর্য্যের কাপ্তাই লেক

নানা প্রজাতির মাছ ও জীববৈচিত্র্যের এক সমৃদ্ধ প্রাণভাণ্ডার এই হ্রদ। এখানে আছে পর্যটনের ঝুলন্ত সেতু, কৃষি খামার, শুভলং ঝরনা ও নৈসর্গিক সৌন্দর্য, পেদা টিংটিং রেস্টুরেন্ট, সাংফাং রেস্টুরেন্ট, চাকমা রাজার রাজবাড়ি, রাজ বনবিহার, উপজাতীয় জাদুঘর, জেলা প্রশাসকের বাংলো, বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সি আবদুর রউফের সমাধি সৌধ এবং উপজাতি পাড়া ও জীবনযাত্রার দৃশ্য।
জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যে তৈরি হলেও মৎস্য উৎপাদন, দেশি-বিদেশি মুদ্রা উপার্জন, স্থানীয়দের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও জীবন-জীবিকা থেকে শুরু করে দেশের সামগ্রিক মৎস্যক্ষেত্রে কাপ্তাই লেক গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে।
অপরুপ সৌন্দর্য্যের কাপ্তাই লেক

এ হ্রদ সৃষ্টির সঙ্গে সম্পর্কিত জলবিদ্যুৎ প্রকল্পের বাঁধটি পার্বত্য চট্টগ্রামের কাপ্তাই উপজেলায় অবস্থিত। বাঁধের অবস্থানস্থল কাপ্তাইয়ের নাম অনুসারে স্থানীয় বাসিন্দারা এটিকে কাপ্তাই হ্রদ হিসেবে বলতে থাকে, যা কোনো কোনো নথিপত্রে কর্ণফুলী হ্রদ হিসেবেও পরিচিতি লাভ করে।
কাপ্তাই লেক দেখার জন্য যেতে হবে রাঙামাটি। কৃত্রিম কাপ্তাই হ্রদ সৃষ্টি হওয়ার কারণে রাঙামাটিতে গড়ে ওঠে আকর্ষণীয় অনেক পর্যটন কেন্দ্র। ৭০ দশকের শেষদিকে সরকার রাঙামাটি জেলাকে পর্যটন এলাকা হিসেবে ঘোষণা করে এবং পর্যটন করপোরেশন পর্যটকদের সুবিধার্থে আকর্ষণীয় স্পট স্থাপন করে।

সাব্বির// এসএমএইচ//১২ই সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং ২৮শে ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Share.

Comments are closed.