প্রতীক বরাদ্ধের পর নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে পড়েছেন চট্টগ্রামের ১৬ আসনের প্রার্থীরা

0

চট্টগ্রাম ব্যুরো:

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রামের ১৬টি সংসদীয় আসনে নির্বাচনী প্রচারণায় নেমে পড়েছেন প্রার্থীরা। গতকাল প্রতীক বরাদ্ধ পাওয়ার পর প্রার্থীরা এখন নেমে পড়েছেন নির্বাচনী মাঠে। সময় আর মাত্র ২০ দিন বাকী। অনেক জল্পনা-কল্পনা আর নানান নাটকীয়তার পর দলীয় মনোনয়ন নিয়েও স্বস্থিতে নেই প্রার্থীরা। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল বিএনপি, কল্যাণ পার্টি, এলডিপি ও জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থীদের নিয়ে আছে অসন্তোষ। নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় বিএনপির ব্যানারে এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছে জামায়াত। আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীর সঙ্গে মহাজোট প্রার্থীও রয়েছে, চলছে ফটিকছড়ির বিদ্রোহী প্রার্থী এটিএম পেয়ারুল ইসলামের মান ভাঙানোর চেষ্টা।
চট্টগ্রাম-১ (মিরসরাই) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির নুরুল আমিন। চট্টগ্রাম-২(ফটিকছড়ি) আসনে মহাজোটের প্রার্থী তরিকত ফেডারেশনের সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারীর প্রতিদ্বদ্বী বিএনপির মো. আজিম উল্লøাহ বাহার। দল থেকে মনোনয়ন না দেওয়ায় ফটিকছড়িতে আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী হলেন এটিএম পেয়ারুল ইসলাম। মাঠে আছেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের প্রার্থী সৈয়দ সাইফুদ্দীন আহমেদ আল হাসানী আল মাইজভান্ডারী। তবে শেষ পর্যন্ত তারাও মহাজোট প্রার্থীকে সমর্থন দেবেন বলে জানা গেছে।
চট্টগ্রাম–-৩ (সন্দ্বীপ) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মাহফুজুর রহমান মিতার সঙ্গে লড়বেন বিএনপির মোস্তফা কামাল পাশা। চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুন্ড) আসনে বিএনপির ইসহাক কাদের চৌধুরী সঙ্গে লড়বেন আওয়ামী লীগের দিদারুল আলম ।
চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে মহাজোটের প্রার্থী জাতীয় পার্টির আনিসুল ইসলাম মাহমুদের সাথে লড়ছেন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম।
চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর সাথে নির্বাচনী লড়াই করবেন বিএনপির জসিম উদ্দিন সিকদার। চট্টগ্রাম-৭ (রাঙ্গুনিয়া) আসনে আওয়ামী লীগের ড.হাছান মাহমুদের প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী এলডিপির নুরুল আলম।
চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী) আসনে বিএনপির নতুন মুখ আবু সুফিয়ানের সাথে লড়ছেন মহাজোটের প্রার্থী জাসদ-আম্বিয়া পার্টির মইন উদ্দীন খান বাদল। এ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুর ছোট ভাই হাসান মাহমুদ চৌধুরী। চট্টগ্রাম-৯ (কোতয়ালী) আসনে চট্টগ্রাম নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেনের প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন আওয়ামী লীগের তরুন প্রার্থী ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।
চট্টগ্রাম-১০ (ডবলমুরিং) আসনে বিএনপির প্রার্থী আব্দুল্লাহ আল নোমানের প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের ডা. আফছারুল আমীন। চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর) আসনে বিএনপির আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের এম আবদুল লতিফ। চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনে আওয়ামী লীগের সামশুল হক চৌধুরীর প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির নতুন প্রার্র্থী এনামুল হক। চট্টগ্রাম-১৩ (আনোয়ারা) আসনে আওয়ামী লীগের সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এর প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির সরওয়ার জামাল নিজাম।
চট্টগ্রাম-১৪ (চন্দনাইশ) আসনে ঐক্যফ্রন্টের শরিক এলডিপির কর্নেল (অব.) অলি আহমদের প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের নজরুল ইসলাম চৌধুরী। চট্টগ্রাম-১৫ (লোহাগাড়া) আসনে জামায়াত নেতা আ ন ম শামসুল ইসলামের সাথে লড়বেন আওয়ামী লীগের আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী।
চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী) আসনে আওয়ামী লীগের মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী জাফরুল ইসলাম চৌধুরী। তবে বাঁশখালী উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা জামায়াতের আমির জহিরুল ইসলাম এ আসন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন।
এদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পাওয়া প্রার্থীদের মধ্যে গতকাল সোমবার প্রতীক বরাদ্দ দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। প্রার্থীদের জন্য প্রতীক সংরক্ষিত আছে ৬৩টি।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. মুনীর হোসাইন খান বলেন, সকাল ১০টা থেকে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ শুরু হয়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কার্যালয়ে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে।
‘এবারের নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত ৩৯টি রাজনৈতিক দলই নির্বাচনে প্রার্থী দিয়েছে। দলগুলোর নিজস্ব প্রতীক রয়েছে। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থীদের জন্য ২৪টি প্রতীক বরাদ্দ আছে। সবমিলিয়ে এবার প্রতীক সংখ্যা ৬৩টি’ যোগ করেন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা।

সাব্বির// এসএমএইচ//১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Share.

Comments are closed.