পায়ের নখের ফাঙ্গাস দূর করার উপায়

0

লাইফস্টাইল ডেস্ক:

পায়ের নখে সাদা, বাদামি বা হলুদ ভাব দেখা দেয়, বিবর্ণ হয়ে যায় নখ। পরে সেখান থেকে নখের বারোটা বাজে।

চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় এই রোগের নাম হল, ‘ওনেকোমাইকোসিস’। রোগ নিরাময়ের জন্য চিকিৎসকরা সাধারণত ফাঙ্গাসরোধী ওষুধ ব্যবহার করেন। তবে এগুলোর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অনেক। যা থেকে পেটে সমস্যা, মাথা ঝিমঝিম ভাবসহ নানান সমস্যা দেখা দেয়।

তবে রোগের মাত্রা বেশি না হলে ঘরোয়া টোটকা ব্যবহার করেও এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়।

স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে এই বিষয়ের ওপর প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে পায়ের নখের ফাঙ্গাস নিরাময়ের কয়েকটি পন্থা এখানে দেওয়া হল।

বেইকিং সোডা: গবেষণায় দেখা গেছে, আর্দ্রতার কারণে হওয়া নখের ফাঙ্গাসের আর্দ্রতা বেইকিং সোডা শুষে নেয়। বেইকিং সোডা ফাঙ্গাসের বৃদ্ধির ৭৯ শতাংশ পর্যন্ত দূর করতে পারে জানা যায় গবেষণা থেকে।

ব্যবহার পদ্ধতি: মোজা বা জুতা পরার আগে তাতে বেইকিং সোডা ছিটিয়ে নিতে পারেন। চাইলে বেইকিং সোডা ও পানি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে আক্রান্ত নখে লাগিয়ে রাখতে পারেন। শুকিয়ে আসলে পানি দিয়ে ধুয়ে নিন।

ভিনিগার: সব বাড়িতেই ভিনিগার পাওয়া যায়। রান্না ও পরিষ্কার করার পাশাপাশি এটা নখের ফাঙ্গাস দূর করতে চমৎকার কাজ করে।

ব্যবহার: এক ভাগ ভিনিগার, দুই ভাগ পানির মধ্যে মিশিয়ে আক্রান্ত পা ২০ মিনিট ডুবিয়ে রাখুন। প্রতিদিন এই পদ্ধতি অনুসরণ করুন।

মাউথ ওয়াশ: মাউথ ওয়াশে মেন্থল, থাইমল ও ইউক্যালিপ্টাসের মতো উপাদান থাকে যাতে আছে ব্যাক্টেরিয়া ও ফাঙ্গাস-রোধী উপাদান।

ব্যবহার: একটা বাটিতে মাউথ ওয়াশ নিয়ে তাতে আক্রান্ত আঙ্গুল ডুবিয়ে রাখুন। কিছুক্ষণ পরে পানি দিয়ে তা ধুয়ে ফেলুন।

রসুন: খাবারের স্বাদ বাড়াতে ও ঔষধি গুণের জন্য রসুন বেশ পরিচিত। রসুনে রয়েছে ব্যাক্টেরিয়া ও ফাঙ্গাস রোধী উপাদান।

ব্যবহার: রসুন-কুচি করে তা আক্রান্ত নখের উপর ৩০ মিনিট রেখে দিন। প্রতিদিন এই পদ্ধতি অনুসরণ করুন। ফাঙ্গাসের সমস্যা দূর হয়ে যাবে।

 

নিলা চাকমা/এসএমএইচ/, রোববার, ২১ এপ্রিল ২০১৯, ৮ বৈশাখ ১৪২৬

Share.

Comments are closed.