ওসির নেতৃত্বে গণধর্ষণ: তদন্তে ৩ সদস্যের কমিটি

0

অনলাইন ডেস্ক

খুলনার জিআরপি থানা পুলিশের ওসি ওসমান গনি পাঠানের নেতৃত্বে ৫ পুলিশ কর্মকর্তার হাতে এক নারী গণধর্ষণের ঘটনায় ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স।

এ কমিটির প্রধান করা হয়েছে- পুলিশ সুপার (এসপি) পদমর্যাদার একজন নারী পুলিশ কর্মকর্তাকে। কমিটিকে আগামী ৭ কার্য দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

বাংলাদেশ পুলিশের এআইজি (মিডিয়া অ্যান্ড পিআর) মো. সোহেল রানা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বার্তায় এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, রেলওয়ে পুলিশ খুলনার ৫ পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে করা এক নারী আসামিকে ধর্ষণের অভিযোগ সংক্রান্ত বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের নজরে এসেছে। অভিযোগটি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে এ বিষয়ে অনুসন্ধান করে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পুলিশ সুপার পদমর্যাদার একজন নারী পুলিশ কর্মকর্তার নেতৃত্বে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটিকে সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে।

এর আগে একই ঘটনায় পাকশী জিআরপির পুলিশ সুপার মো. নজরুল ইসলাম ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়েছে জিআরপির সহকারী পুলিশ সুপার ফিরোজ আহমেদকে।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) শ. ম কামাল হোসাইন ও মো. বাহারুল ইসলাম। আগামী সাতদিনের মধ্যে কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২ আগস্ট সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বেনাপোল থেকে খুলনাগামী একটি কমিউটার ট্রেনে ওই নারীকে এক নারী এসআইয়ের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ৫ বোতল ফেনসিডিলসহ গ্রেপ্তার করে। এই ঘটনায় ওইদিন রাতেই খুলনা রেলওয়ে থানায় তার বিরুদ্ধে একটি মাদক মামলা রুজু করা হয়। পরের দিন সকাল সাড়ে ৯টার দিকে আসামি নারীকে আদালতে হাজির করা হয়। তখন তিনি বিচারকের কাছে থানার ভেতরে আটকে পাঁচ পুলিশের হাতে গণধর্ষণের বর্ণনা দেন।

সাব্বির=৬ই আগস্ট, ২০১৯ ইং ২২শে শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

 
Share.

Comments are closed.