আন্দামানের নীল জলের হাতছানি

লাইফস্টাইল ডেস্ক :

ভ্রমণের জন্য আন্দামানের কথা কি ভেবেছেন কখনো? নীল সমুদ্রে ঘেরা এই দ্বীপ দেখলে কিন্তু একটাই কথা মনে হবে যেন স্বপ্নের দেশ!

শহরের রস থেকে একটু দূরেই রয়েছে নর্থ বে আইল্যান্ড। সেখানে বসতি নেই। কিন্তু নানারকম আন্ডারওয়াটার খেলার আয়োজন রয়েছে। স্কুবা ডাইভিং, সি-ওয়াক, স্নর্কলিং-এর মতো নানা অ্যাডভেঞ্চারের সাক্ষী হতে পারেন পর্যটকরা।

নীল ও হ্যাভলক এই দুটি দ্বীপ আন্দামানের প্রধান আকর্ষণ। নীল দ্বীপের পানির রং আর স্বচ্ছতা দেখে যে কেউ প্রেমে পড়ে যেতে বাধ্য। এ ছাড়াও রয়েছে ভরতপুর, লক্ষ্মণপুর, সীতাপুর সৈকত।

হ্যাভলক দ্বীপটি একটু দামী। কারণ এখানে আছে রাধানগর বিচ। যা পৃথিবীর বিখ্যাত বিচগুলোর মধ্যে একেবারে প্রথম দিকে। পাহাড়, জঙ্গল, সাদা বালি আর আকাশী নীল পানি নিয়ে রাধানগর অসাধারণ।

হ্যাভলক থেকে নৌকায় চড়ে ৪০ মিনিট সমুদ্র পাড়ি দিলেই পৌঁছনো যায় এলিফ্যান্ট বিচ।   এখানেও ব্যবস্থা রয়েছে পানির নানা খেলার। যদি কিছুই করতে ইচ্ছে না করে, তা হলে নীল পানিতে গা ডুবিয়ে বসে থাকাতেও মানা নেই।

আন্দামান ভ্রমণের সব থেকে চাঞ্চল্যকর অভিজ্ঞতা হলো বারাতাং দ্বীপ দর্শন। কারণ সেখানে আজও সেখানে বাস করে জারোয়া উপজাতির মানুষজন। তবে সেখানে যেতে হলে রওনা দিতে হয় ভোর ৩টার সময়।

আন্দামানের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই। কিন্তু যারা প্রথমবার এখানে যাবেন, তারা প্রতি মুহূর্তেই মুগ্ধতায় আপ্লুত হবেন এটা নিশ্চিত।

সাব্বির// এসএমএইচ//২৭শে আগস্ট, ২০১৮ ইং ১২ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …