আম আর দেশি লিচুতে মধুমাস শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক :

তাপদাহের দাপট না থাকলেও ছিল ঝড়ের তাণ্ডব। সাথে মুষলধারার বৃষ্টি। এই সবের মধ্যেই শেষ হলো বৈশাখ মাস। আর ভারতীয় আমের সাথে দেশি লিচুর যোগে শুরু হলো জৈষ্ঠের মধুমাস। মূলত রসালো শাঁসালো হরেক রকম ফলের ডালি নিয়ে হাজির হয় এই মাসটি। যার মন মাতানো সৌরভ থাকে চারদিকে। শুধু ফল-ফলাদি নয়, কৃষ্ণচূড়া, রাধাচূড়া লাল বর্ণের ফুল ও কনকচুড়া, হলুদচুড়া এবং মাধবীজবা বলে দিচ্ছে জ্যৈষ্ঠ এসেছে। ফলের সাথে ফুলের সমারোহ প্রকৃতিতে যেন এ এক অন্যরকম সাজ।সারা বছরের মধ্যে এ মাসেই রসালো আম ও লিচুর স্বাদ পাওয়া যায়। ফলের রাজা আমও আসে রাজকীয় হালে। আজ থেকে মধুমাস শুরু হলেও প্রকৃতপক্ষে শাঁসালো রসালো আম-লিচুর স্বাদ নিতে আরো কয়েকদিন সময় লাগবেই।রমধ্যে ভ্রমণ পিপাসু মানুষ প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন সরাসরি আম বাগান আর বাজার দেখার জন্য। বিশেষ করে আম বাগানের মধ্য দিয়ে চলে যাওয়া রাস্তা দিয়ে যেতে দুচোখ যেদিকে যাবে শুধু আম গাছ আর আমের স্বাগতম দুলনি। শুধু কি তাই আম লিচুর এ মৌসুমে শ্বশুররা বেশ ব্যস্ত থাকবেন। মেয়ের সম্মানের কথা ভেবে বেয়াই বাড়িতে পাঠানো হবে আম-লিচুর ঝুড়ি। অন্য ঘনিষ্ঠজনদের বাড়িতেও যাবে। মেয়ে জামাইকে নাইয়রে আনা হবে। সব মিলিয়ে কি শহর কি গ্রাম মেতে উঠবে মধুমাস উৎসবে।আর দুদিন পর শুরু হবে রমজান মাস। এবার রমজান মাসজুড়ে থাকবে আমের সমারোহ। সেই সাথে কম যাবে না লিচুর চাহিদাও। রোজাদারদের তৃষ্ণা মেটাবে পাকা আমের জুস। প্রতিবছরের মত ম্যাঙ্গোট্যুর শুরু হবে।মৌসুমের আগেই এবারও ভারতীয় স্বাদহীন পাকা আম এসেছে রাজশাহীর বাজারে। বিভিন্ন ফলের দোকানে এসব আম বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। তবে এরই মধ্যে ভারতীয় বাহারি আম চলে এসেছে। ফল দোকানিরা পসরা সাজিয়ে বসেছেন ভারতীয় ‘গোলাপ খাশ’, ‘দিলশাদ’, ‘বৈশাখী’ ও ‘বউ কথা কও’ জাতের আম এখন পাওয়া যাচ্ছে রাজশাহীর বাজারে।‘আম ক্যালেন্ডার’ অনুযায়ী, আগামী ২০ মে থেকে বাজারে আসবে সব ধরনের গুটি আম। এরপর ২৫ মে গোপালভোগ, হিমসাগর ও ক্ষিরসাপাতি ২৮ মে বাজারে আসবে। আগামী ১ জুন লক্ষণভোগ, ৫ জুন ল্যাংড়া ও বোম্বায়, ১৫ জুন আমরূপালি, ফজলী ও সুরমা ফজলী বাজারে আসবে। মৌসুম শেষের আশ্বিনা আসবে ১ জুলাই থেকে।আম বিক্রেতারা বলছেন, বাজারে ভারতীয় গোলাপ খাশ ও দিলশাদ আম প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকায়। আর বৈশাখীর দাম ১৮০ থেকে ২০০ টাকা। বউ কথা কও বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা কেজি দরে।মৌসুমের আগে আম পেয়ে ঝুঁকছেন ক্রেতারাও। ফলে বেশ চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে এসব আম। স্বাদে ভারতীয় এসব আম রাজশাহীর আমের ধারে-কাছেও নেই। ফলে একবার কিনেই ক্রেতারা বিমুখ হচ্ছেন।কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্যমতে, দেশে বর্তমানে আম উৎপাদন হচ্ছে প্রায় এক লাখ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আবাদ হচ্ছে বৃহত্তর রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায়।

সাইফুল//এসএমএইচ//১৫ই মে, ২০১৮ ইং ১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …