ইমরানকে ঠেকাতে প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী দিচ্ছে বিরোধীরা

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক :

ইমরান খানের প্রধানমন্ত্রী হওয়া ঠেকাতে পার্লামেন্টে প্রার্থী নামাবে বিরোধী জোট। ইমরানকে চ্যালেঞ্জ জানাতে জোটের প্রধান দুই দল কারারুদ্ধ সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের পিএমএল-এন ও প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর পিপিপি এ সিদ্ধান্তে এসেছে।
দল দুটির নেতৃত্বে কয়েকটি ছোট দল নিয়ে অল পার্টিজ কনফারেন্স (এপিসি) বলেছে, তারা পার্লামেন্টে প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থী দেবে এবং সবাই মিলে তাকে সমর্থন দেবে। যাতে ইমরান খান দেশটির প্রধানমন্ত্রী হতে না পারেন।
পাকিস্তানে গত সপ্তাহের নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি ১১৬টি আসন জিতেছে ইমরানের পিটিআই। সরকার গড়তে ছোট দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করছে দলটি। অন্যদিকে পিএমএল-এন ও পিপিপির সম্মিলিত আসন ১০৭।
টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, পিএমএল ও পিপিপিসহ আরও বেশ কয়েকটি ছোট ছোট দলের সমন্বয়ে গঠিত বিরোধী জোট বৃহস্পতিবার পার্লামেন্টে প্রার্থী দেয়ার ঘোষণা দেয়।

তবে রয়টার্স বলছে, ইমরানের জোটকে চ্যালেঞ্জ করার মতো শক্তি ও সামর্থ্য বিরোধীরা অর্জন করতে পারবে না বলেই মনে করা হচ্ছে।
পিটিআই নেতারা জানিয়েছেন, ১৪ আগস্ট বিজয় দিবসের আগেই শপথ নেবেন ইমরান। এ লক্ষ্যে রাতদিন পরিশ্রম করছেন তিনি। সরকার গঠন করতে হলে ১৩৭ আসন দরকার। বাকি আসনগুলো পিটিআই স্বতন্ত্র ও অন্যান্য ছোট দলগুলো থেকে নেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়েছে। সরকার গঠনে প্রয়োজনীয় সমর্থন পাওয়া গেছে বলেও জানিয়েছে দলটির নেতা।
পিটিআইয়ের বক্তব্য অনুযায়ী আর মাত্র সপ্তাহ খানেক পরই শপথ নেবেন ইমরান। এমন পরিস্থিতিতে বিরোধী জোট এপিসির প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থী দেয়ার ঘোষণা তার জন্য চ্যালেঞ্জ হিসেবেই হাজির হয়েছে।
নির্বাচনে পিএমএল-এন ৬৪টি এবং পিপিপি ৪৩টি আসন পেয়েছে। এ ছাড়া এপিসির অন্তর্ভুক্ত অন্যতম দল মুত্তাহিদা মজলিস-ই-আমল ১৩টি আসন পেয়েছে।

জিও নিউজ জানায়, বৃহস্পতিবার ছিল এপিসির দ্বিতীয় বৈঠক। ইসলামাবাদে বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে কথা বলেন নওয়াজের ছোট ভাই পিএমএল-এন সভাপতি শাহবাজ শরিফ। কিন্তু শুক্রবারও তারা বড় ধরনের কোনো সিদ্ধান্তের ব্যাপারে একমত হতে পারেননি। এর আগে ২৭ জুলাই মুত্তাহিদা মজলিস-ই-আমল দলের আহ্বানে প্রথম অল পার্টি কনফারেন্সের আহ্বান করা হয়। যেখানে উপস্থিত ছিল না পিপিপির কোনো প্রতিনিধি।
ভোট চুরির বিরুদ্ধে আন্দোলন চালিয়ে যেতে বললেন নওয়াজ: নির্বাচনে কারচুপি ও ভোট চুরির আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার জন্য দলের নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন নওয়াজ। বৃহস্পতিবার রাওয়ালপিন্ডির আদিয়ালা কারাগার থেকে এ নির্দেশনা দেন তিনি।
বৃহস্পতিবার কারাগারের নওয়াজ, তার মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ ও জামাই মোহাম্মদ সফদারের সঙ্গে দেখা করেন দলের নেতারা। এ সময় ইমরানের মোকাবেলায় বিরোধী দলগুলোকে সঙ্গে নিয়ে যৌথ কৌশল নির্ধারণের নির্দেশ দেন তিনি।

সাক্ষাৎ শেষে কারাগারের বাইরে নেতারা সাংবাদিকদের বলেন, ‘নির্বাচনের জনগণের ম্যান্ডেট চুরি করা হয়েছে। এর বিরুদ্ধে লড়াই অব্যাহত রাখতে হবে।’
ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) পক্ষ থেকে একটি নির্বাচনী পর্যবেক্ষক তাদের এক রিপোর্টে বলেছে, গত সপ্তাহের নির্বাচনের আগে নির্বাচনের মাঠে সব দলের জন্য সমান সুযোগ রাখা হয়নি। এছাড়া নির্বাচনে বড় ধরনের অনিয়মের কথা বলেছেন তারা। এ অবস্থায় নির্বাচনের বৈধতা ও অবৈধতা ঠিক করবে দেশটির জনগণ।
সিনেটর মুশাহিদ হুসাইন সায়েদ বলেন, নওয়াজ ও মরিয়ম এখনও বেশ আত্মবিশ্বাসী রয়েছেন। তিনি বলেন, তারা চান নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির বিরুদ্ধে আন্দোলন-সংগ্রাম চালিয়ে যান পিএমএল-এন নেতাকর্মীরা। দলের এক সিনিয়র নেতার বরাত দিয়ে ডন জানায়, কারাগারে সাক্ষাৎকারের সময় নেতারা অন্যান্য দলের সঙ্গে নেতাদের সাম্প্রতিক বৈঠক ও আলোচনার কথা নওয়াজকে জানিয়েছেন।

সাব্বির// এসএমএইচ//৪ঠা আগস্ট, ২০১৮ ইং ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …