এমন ‘এল ক্লাসিকো’ আর হয়নি

ক্রীড়া ডেস্ক :

স্প্যানিশ লা লিগার এ মৌসুমের সূচি প্রকাশ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এই ম্যাচটিতে গোল দাগ পড়ে যায়। সংগত কারণেই। লিগে দুই দলের জন্য এটি ৩৫তম ম্যাচ, অর্থাৎ এরপর বাকি থাকবে তিন রাউন্ড। বার্সেলোনা-রিয়াল মাদ্রিদের এই দ্বৈরথেই তো শিরোপার গন্তব্য আঁকা হওয়ার পূর্বাভাস ছিল।

সেটি এখন কী ভুল হিসেবেই না প্রমাণিত! সাম্প্রতিক ইতিহাসে এত অর্থহীন(!) ‘এল ক্লাসিকো’ আর হয়নি।

হ্যাঁ, আভিজাত্যের লড়াই রয়েছে। অহংয়ের টক্করও। কিন্তু ফুটবলীয় বিবেচনায়, লা লিগার শিরোপা-আলোচনায় বার্সা-রিয়ালের এই ম্যাচ হয়ে  গেছে একেবারে অপ্রাসঙ্গিক। বার্সেলোনা যে এরই মধ্যে লা লিগা জয় নিশ্চিত করে ফেলেছে ৩৪ ম্যাচে ৮৬ পয়েন্ট নিয়ে। জিনেদিন জিদানের দল পিছিয়ে ১৫ পয়েন্টে। রিয়াল তো বটেই, এ দুয়ের মাঝে থাকা আতলেতিকো মাদ্রিদের (৩৫ ম্যাচে ৭৫ পয়েন্ট) পক্ষেও আর সম্ভব না বার্সেলোনাকে ছোঁয়া।

বার্সার লা লিগা জেতা সারা। ওদিকে ‘লস ব্লাঙ্কো’রা উঠে গেছে চ্যাম্পিয়নস লিগের ফাইনালে। সে প্রস্তুতিতেই এখন তাদের সব মনোযোগ। তাহলে আর আজকের ধ্রুপদি মহারণের গুরুত্বটা রইল কোথায়!

হ্যাঁ, এক জায়গায় গুরুত্বটা ছিল—বার্সেলোনা লা লিগা চ্যাম্পিয়ন হিসেবে এ ম্যাচ খেলতে নামলে রিয়াল মাদ্রিদ তাদের ‘গার্ড অব অনার’ দেবে কি না! কী আশ্চর্য, ঠিক আগের ম্যাচেই চ্যাম্পিয়নশিপ নিশ্চিত হয়েছে এর্নেস্তো ভালভের্দের দলের। কিন্তু চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীরা যে তাদের ওই ‘সম্মান’টা দেবে না, সেটিও বেশ আগে নিশ্চিত করে দিয়েছেন রিয়াল কোচ জিনেদিন জিদান। এল ক্লাসিকোর আবহে তা আবার মনে করিয়ে দিয়েছেন, ‘আমরা ক্লাব বিশ্বকাপ জেতার পর দেখেছি যে, ওদের জন্য গার্ড অব অনার দেওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। অনেকে বলেছেন যে, বার্সেলোনা ওই প্রতিযোগিতায় না থাকার কারণেই তারা অমনটা করেনি। এটি মিথ্যা। কারণ চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেই আমরা ক্লাব বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছি আর ওই চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলেছি আমরা সবাই। এবার আমরা ওদের গার্ড অব অনার দেব কি না, সে সিদ্ধান্ত আমার নয়। তবে আমি বার্সাকে তা দিতে চাই না; কারণ ওরা আমাদের দেয়নি।’

তবে ক্লাব হিসেবে বার্সেলোনাকে অভিবাদন না জানালেও আন্দ্রেস ইনিয়েস্তার ব্যাপার আলাদা। ‘এল ক্লাসিকো’তে শেষবারের মতো মাঠে নামা এই মিডফিল্ড জাদুকরকে সম্মান জানানোয় বাধা দেখছেন না জিদান, ‘আমি তো আগেও বলেছি, আন্দ্রেস যেকোনো একজন ফুটবলার নয়। ও কেমন ফুটবলার এবং কেমন ব্যক্তি, আমরা সবাই তা জানি। ওকে অবশ্যই আমরা অভিনন্দন জানাব এবং ভবিষ্যতের জন্য জানাব শুভ কামনা।’ প্রথম একাদশের সবাইকে নিয়ে পূর্ণশক্তিতে নিশ্চিতভাবে আজ ঝাঁপাবে না রিয়াল। তবে জয়ের জন্য শতভাগ চেষ্টার প্রতিশ্রুতি জিদানের, ‘এই ম্যাচের ফলের ওপর লিগ টেবিল পাল্টে যাবে না। তবে আমরা ভালো খেলতে এবং জয়ের জন্য সম্ভাব্য সব কিছু করতে চাই। তবে যেসব ফুটবলারের ইনজুরি রয়েছে, তাঁদের নিয়ে বিন্দুমাত্র ঝুঁকি নেব না। বিকল্প হিসেবে অনেক ফুটবলার রয়েছে আমাদের।’

বার্সেলোনা অবশ্য মাঠে নামাবে পূর্ণশক্তির একাদশ। দুটি কারণে। আজ ন্যু ক্যাম্পে বড় ব্যবধানে যদি হারাতে পারে রিয়াল মাদ্রিদকে, সেটি প্রতিপক্ষের আত্মবিশ্বাসে ধাক্কা দেবে। আর লা লিগা ইতিহাসের প্রথম দল হিসেবে পুরো মৌসুম অপরাজিত থাকার পথেও এগিয়ে যাবে অনেকখানি। প্রথম ৩৪ ম্যাচের মধ্যে ২৬টিতে জিতেছে বার্সা; ড্র বাকি আট খেলায়। হারেনি এক ম্যাচেও। অপরাজিত থাকার রেকর্ডের অমরত্ব থেকে এখন মাত্র চার ম্যাচ দূরে বার্সেলোনা।

না হয় বার্সেলোনা-রিয়াল মাদ্রিদের কাছে দ্বৈরথটি এক অর্থে অর্থহীন, লিওনেল মেসি-ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর জন্য তো সেটি অর্থপূর্ণ হতে পারত। ‘পিচিচি’র লড়াইয়ে। নাহ্, সেখানকার লড়াইটাও বড্ড একপেশে। ৩২ গোলের মেসির ওই ট্রফি পাওয়াটা একরকম নিশ্চিত; রোনালদো যে পিছিয়ে ৮ গোলে! তাহলে?

এ কারণেই তো বলা, সাম্প্রতিক ইতিহাসে এত অর্থহীন(!) ‘এল ক্লাসিকো’ আর হয়নি। মার্কা

সাইফুল//এসএমএইচ //৬ই মে, ২০১৮ ইং ২৩শে বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …