খাগড়াছড়িতে জেএসএস কর্মীকে গুলির পর গলা কেটে হত্যা

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়িতে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা শান্তি রঞ্জন চাকমা (৪০) নামে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস-এমএন লারম) এক কর্মীকে প্রথমে গুলির পর গলা কেটে হত্যা করেছে।
রোববার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে মাটিরাঙা উপজেলার তাইন্দং ইউনিয়নের সর্বস্বপাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।
নিহত শান্তি রঞ্জন একই গ্রামের তেজরুল চাকমার ছেলে। এ ঘটনার জন্য ইউপিডিএফকে (প্রসীত) দায়ী করেছে জেএসএস (এমএন লারমা)।
স্থানীয়রা জানান, নিহত শান্তি রঞ্জন নিজের বাড়িতেই ছিলেন। সকালে তিনি ঘর থেকে বের হলে সন্ত্রাসীরা তাকে হত্যার চেষ্টা করে। এ সময় তিনি পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে পাহাড়ের পাদদেশে তাকে ধরে প্রথমে গুলি ও পরে গলা কেটে হত্যা নিশ্চিত করে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

তাইন্দং ইউপি চেয়ারম্যান মো. হুমায়ন কবীর জানান, গুলি করার পর শান্তি রঞ্জনকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। নিহতের দেহে আটটি গুলির চিহ্ন পাওয়া যায়।
পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির(জেএসএস-এমএন লারমা) কেন্দ্রীয় সহ তথ্য ও প্রচার সম্পাদক প্রশান্ত চাকমা জানান, ইউপিডিএফ(প্রসীত) গ্রুপই এ হত্যাকা- ঘটিয়েছে। নিহত শান্তি রঞ্জন মাটিরাঙা উপজেলায় জেএসএসের(এমএন লারমা) অঙ্গসংগঠন যুব সমিতির সক্রিয় সদস্য।
ইউপিডিএফের(প্রসীত) কেন্দ্রীয় সংগঠক মাইকেল চাকমা জানান, এ ঘটনার সঙ্গে ইউপিডিএফ কোনোভাবেই জড়িত নয়। তবে ঘটনাস্থল তাইন্দং ভারতীয় সীমান্তবর্তী হওয়ায় এর সুষ্ঠু তদন্ত হওয়া উচিত।
মাটিরাঙা থানার সৈয়দ জাকির হোসেন জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।
প্রসঙ্গত গত বৃহস্পতিবার প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীদের গুলিতে জ্ঞানেন্দু চাকমা(৪০) নামে এক ইউপিডিএফ কর্মী নিহত হন। এ ছাড়া শুক্রবার খাগড়াছড়ি জেলা সদরে ইউপিডিএফ সমর্থিত উপজেলা চেয়ারম্যান চঞ্চুমনির ওপর সন্ত্রীসারা হামলা করে। উভয়ই ঘটনার জন্য জেএসএসকে(এমএন লারমা) দায়ী করে ইউপিডিএফ।

সাব্বির// এসএমএইচ//১৫ই জুলাই, ২০১৮ ইং ৩১শে আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …