খালেদা জিয়ার ফিজিওথেরাপি শুরু আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক :

বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল আছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আব্দুল্লাহ আল হারুন। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার অবস্থা কোনো অবনতি হয়নি। আশা করি আজ থেকে তার ফিজিওথেরাপি শুরু হয়ে যাবে।

মঙ্গলবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

আবদুল্লাহ আল হারুন বলেন, খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিএসএমএমইউ কত দিন থাকতে হবে, তা নিশ্চিত করে বলতে পারছি না। তাঁর চিকিৎসায় গঠিত পূর্ণাঙ্গ মেডিকেল বোর্ড এখনো তাঁকে দেখার সুযোগ পায়নি। আগামীকাল বুধবার বিকেল চারটায় পূর্ণাঙ্গ বোর্ড তাঁকে দেখার সম্ভাবনা রয়েছে।

তিনি বলেন, বোর্ডের একাধিক সদস্য পৃথকভাবে বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেছেন এবং তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেছেন। ইতিমধ্যে তাঁর শারীরিক পরিস্থিতির ইতিহাস সংগ্রহ করেছেন তাঁরা। আজ বিকেল বা সন্ধ্যায় খালেদা জিয়ার ফিজিওথেরাপি শুরু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

সোমবার খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ডের ৪ সদস্য সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গেঁটেবাতজনিত সমস্যায় ভুগছেন। তাঁর ডায়াবেটিসসহ বেশ কিছু রোগ অনিয়ন্ত্রিত অবস্থায় আছে। এসব রোগ নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। এরপর তাঁর মূল চিকিৎসা শুরু হবে। তাই বিএসএমএমইউয়ে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা কত দিন চলবে, তা নির্দিষ্ট করে এখনই বলতে পারছে না মেডিকেল বোর্ড।

তার আগে রোববার দিবাগত রাতে বোর্ডের একজন সদস্য অধ্যাপক সৈয়দ আতিকুল হক বোর্ডের প্রতিনিধি হিসেবে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করেন। সৈয়দ আতিকুল হক সাংবাদিকদের বলেন, খালেদা জিয়ার সমস্যা মূলত গেঁটেবাতজনিত।

প্রসঙ্গত, ৬ অক্টোবর আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। গত শনিবার বিকেল পৌনে চারটার দিকে বিএসএমএমইউয়ে নেওয়া হয় খালেদা জিয়াকে।

এর আগে ইউনাইটেড বা বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা নিতে নির্দেশনা চেয়ে গত ৯ সেপ্টেম্বর খালেদা জিয়া রিট করেন। আবেদনে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য একটি বিশেষ বোর্ড গঠন করার নির্দেশনাসহ তাঁর চিকিৎসাসেবা-সংক্রান্ত যাবতীয় নথি দাখিলের নির্দেশনা চাওয়া হয়। গত ১৫ সেপ্টেম্বর খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় গঠিত পাঁচ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড পুরান ঢাকায় নাজিমুদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে গিয়ে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন। পরে গত ৪ অক্টোবর বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউয়ে ভর্তি করতে ও চিকিৎসাসেবা শুরু করতে পাঁচ সদস্যের একটি বোর্ড গঠন করার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় গত ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডাদেশ দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫। এরপর থেকে খালেদা জিয়া নাজিমুদ্দিন রোডের কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন। ওই মামলায় বিচারিক আদালতের রায়ের পাঁচ মাসের মাথায় ১২ জুলাই আপিলের ওপর শুনানি শুরু হয়।

সাব্বির// এসএমএইচ//৯ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং ২৪শে আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …