ঘুষ বোর্ড!

0

নিজস্ব প্রতিবেদক :

এই অফিসে যদি কাউকে ঘুষ দিয়ে থাকেন, তবে এই বোর্ডে বিবরণ লিখে যাবেন’। হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে দেয়ালে বসানো ‘ঘুষ বোর্ড’ এ লেখা আছে এসব কথা। কার্যালয়ের ঘুষখোর কর্মচারী চিহ্নিত করা এবং ঘুষের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে এ ধরনের উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন অনেকেই।

নিজের কার্যালয়ে ‘ঘুষ বোর্ড’ লাগানোর কারণ ব্যাখ্যা করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রুহুল আমিন বলেন, সেবাপ্রার্থীরা সেবা নিতে এসে এ ধরনের অনৈতিক প্রস্তাব পেতেই পারেন। কিন্তু সেবা না পাওয়ার ভয়ে অনিচ্ছাসত্ত্বেও অনেকে এই প্রস্তাবে রাজি হতে বাধ্য হন। তাদের সহায়তার জন্যই এই ‘ঘুষ বোর্ড’।

সম্প্রতি উপজেলা নির্বাহী অফিসে সেবা গ্রহণকারীর কাছে কর্মচারীর ঘুষ চাওয়ার ঘটনাটি বেশ আলোচিত হওয়ায় ঘুষের প্রবণতা ঠেকাতে এ অভিনব উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলেও জানান ইউএনও রুহুল আমিন।

তিনি বলেন, সেবা পাওয়া নাগরিক অধিকার। সেবা দেয়ার বিনিময়ে কেউ ঘুষ চাইলে বা ঘুষ দিতে বাধ্য করলে সেবাপ্রার্থী বিষয়টি এই বোর্ডে লিখে যেতে পারেন। এতে অসৎ কর্মচারীকে আমরা চিহ্নিত করতে পারবো। যদি একজনও এ ধরনের অনিয়মের কথা লিখে যেতে পারেন, তবেই আমাদের সফলতা। এতে অন্তত ঘুষখোরদের পরিচিতি প্রকাশ করা যাবে।

মো. রুহুল আমিন বলেন, ঘুষ লেনদেনে জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। পর্যায়ক্রমে ভূমি অফিস, পৌরসভাসহ সব সরকারি কার্যালয়ে ‘ঘুষ বোর্ড’ বসানোর পরিকল্পনা আছে।

 সাব্বির//২রা জুলাই, ২০১৯ ইং ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

Share.

About Author

Comments are closed.