চট্টগ্রামে কাঁচা মরিচের বাজারে আগুন,বেড়েছে মাছের দামও

সাব্বির আহমেদ, চট্টগ্রাম:

বন্দর নগরী চট্টগ্রামের বাজারগুলোতে কাঁচা মরিচের দাম আশঙ্কা জনক হারে বেড়ে গেছে। অতিবৃষ্টি ও বন্যার কারণে বাজারে তেমন কাঁচা মরিচের সরবারাহ না থাকায় এ দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রায় তিন সাপ্তাহ পার হয়ে গেলে ও এ দাম কিছুতেই কমছেনা। বর্তমানে বাজারে প্রতি কেজি কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায়। কিছু দিন আগেও বাজারের কাঁচা মরিচের মূল্য ছিল কেজি প্রতি ৩০ থেকে ৪০টাকা। গতকাল নগরীর রেয়াজ উদ্দিন বাজার, কাজির দেউরি বাজার, চকবাজার, বহদ্দারহাট, কর্ণফূলী মার্কেট, দেয়ানহাট ও ফইল্লাতলী বাজারে গিয়ে দেখ গেছে এসব চিত্র। শুধু তাই নয় কাঁচা মরিচের সাথে পাল্লাদিয়ে বেড়েছে মাছের দামও।
চট্টগ্রাম শহরের বেশকয়েকটি বাজারের ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বন্যার কারণে বাজারে কাঁচা মরিচের সরবারাহ কম। বন্যা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বাজারে কাঁচা মরিচের সরবারাহ বাড়বে। এতেই কমতে শুরু করবে কাঁচা মরিচের দাম।
কাঁচা মরিচের দাম বাড়ার প্রসঙ্গে নগরীর রেয়াজুদ্দিন বাজারের পাইকারী সবজি বিক্রেতা নবাব মিয়া মানবকন্ঠকে বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যা হওয়ার কারণে বাজারে তেমন কাঁচা মরিচ নেই। বর্তমানে বাজারে পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ী এলাকা, কুমিল্লা ও সিলেট এবং বিভিন্ন ছাদ বাগানের কাঁচা মরিচ বিক্রি করা হচ্ছে। তাই দাম বেশি।
এদিকে কাঁচা মরিচের মত প্রায় কয়েক সপ্তাহ ধরে ডিমের দামও বৃদ্ধি পেয়েছে বাজারে। রোজার সময় ডজন প্রতি ৬৫ টাকায় বিক্রি হওয়া ডিম বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকায়। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বাজারে ডিমের সরবারাহ কম। যে পরিমাণ ডিমের চাহিদা আছে সে পরিমাণ ডিম বাজারে নেই। তাই দাম বেশি।
তবে গতকাল পর্যন্ত নগরীর বিভিন্ন বাজারে খোজঁ নিয়ে জানাগেছে কিছুটা কমেছে অন্যান্য সবজির দাম। বাজারে প্রতি কেজি ঢেঁড়স বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। পটল ৪০ টাকায়, প্রতি কেজি বেগুন কেজিতে বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। প্রতি কেজি কাকরোল ৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি আলু ৩০ টাকায় এবং পেঁয়াজ ৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।তবে বরবটি বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে কেজি ৯০ টাকায়। শসা বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা, চিচিঙ্গা বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা, লাউ ৫ টাকা ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া শিম ১৮০ টাকা, পেঁপে ৩৫ টাকা, মূলা ৭০ টাকা, তিতকরলা ৫০ টাকা, টমেটো কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে ৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ফুলকপি বিক্রি হচ্ছে ২২০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া পাকা ৩০ টাকা, কাঁচা ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
অন্যদিকে, খুচরা চাল ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মোটা চালের মধ্যে স্বর্ণা চাল বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি ৪৬ টাকা। যা এক মাস আগে ৪০-৪২। পাইজাম চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৮ টাকা। যা এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে ৪৪ টাকা। চিকন চালের মধ্যে মিনিকেট ও নাজিরশাইল বিক্রি হয়েছে ৬০ টাকা। যা এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে ৫৬ টাকা। বিআর-২৮ চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৮-৫০ টাকা। যা এক মাস বিক্রি হয়েছে ৪৫ টাকা।
এদিকে সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়েছে সব ধরনের শাকের দাম। বাজার ঘুরে দেখা গেছে প্রতি আঁটি লাউ শাক ২৫ থেকে ৩০ টাকা, লাল শাক, পালং শাক ১০ থেকে ২০ টাকা, পুঁই শাক ও ডাটা শাক ২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
অন্যদিকে ব্যাটারি গলির মাছ বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, সব ধরনের মাছের দাম কেজিতে ২০ থেকে ৭০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। গলদা চিংড়ি আকারভেদে বিক্রি হচ্ছে ৬৫০থেকে৭৫০ টাকা, তেলাপিয়া ১৫০থেকে১৮০ টাকা, পাঙ্গাস ২২০থেকে২৫০ টাকা, লইট্টা ১০০ থেকে১২০ টাকা, কেচকি ২৫০থেকে২৮০ টাকা, বাটা মাছ ৪০০থেকে৪৫০ টাকা, কোরাল ৪৫০থেকে০০ টাকা, রূপচাঁদা (সাদা) ৮০০থেকে৯০০ টাকা, দেশী মাগুর ৫৫০থেকে৬৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া শৈল ৫০০থেকে৬০০ টাকা, রুই আকারভেদে ২৮০থেকে৩৫০ টাকা, কাতলা ৩০০থেকে৩৫০ টাকা, কৈ ৩০০থেকে ৩৫০ টাকা, দেশী শিং মাছ ৫০০থেকে৬০০ টাকা, বোয়াল ৫৫০থেকে৬৫০ টাকা এবং ইলিশ আকারভেদে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৮০০ থেকে এক হাজার ৪০০ টাকা পর্যন্ত। অপরদিকে ব্রয়লার মুরগি কেজিতে ৫ টাকা কমে এখন বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকায়। দেশি মুরগি কেজিতে ১০ টাকা কমে এখন বিক্রি হচ্ছে ৪১০ টাকায়। তবে অপরিবর্তিত রয়েছে ছাগলের মাংসের দাম। প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে এখন ৭০০ টাকায়। অন্যদিকে গরুর মাংস কেজিতে কমেছে ৫০ টাকা। হাঁড়ছাড়া ৬০০ টাকা কেজি এবং হাঁড়সহ ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
মনোয়ারা বেগম নামের এক ক্রেতা মানবকন্ঠকে বলেন, বাজারে সবজি, মাছ, মাংস সব কিছুর দাম বেশি। যেভাবে সবকিছুর দাম বাড়ছে সেভাবে আমাদের আয় বাড়ে না। এভাবে দাম বাড়তে থাকলে আমাদের জীবনধারণ কষ্টকর হয়ে পরবে।

সাব্বির// এসএমএইচ//১৮ই জুলাই, ২০১৮ ইং ৩রা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …