চট্টগ্রামে টিসিবির পণ্য বিক্রয়ে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব

চট্টগ্রামে টিসিবির পণ্য বিক্রির ট্রাকগুলোতে ক্রেতাদের দীর্ঘ লাইন। মুহূর্তের মধ্যে শেষ হয়ে যাচ্ছে পণ্য। তবে টিসিবির আইটেমে চাল কম থাকায় ক্রেতারা ফেরত যাচ্ছে। ক্রেতারা আরো বেশি চাল বিক্রির দাবি জানিয়েছেন। এছাড়া বেশিরভাগ টিসিবি পণ্যের ট্রাকের সামনে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব। বর্তমানে টিসিবি খোলাবাজারে ডিলারদের মাধ্যমে চিনি, তেল, ছোলা ও মসুর ডাল বিক্রি করছে।

টিসিবি জানায়, তারা ডিলারদের মাধ্যমে চট্টগ্রাম মহানগরীতে ২৩টি ট্রাকে করে পণ্য বিক্রি করছে। এছাড়া উপজেলা পর্যায়েও ডিলারদের মাধ্যমে ন্যায্যমূল্যে পণ্য বিক্রি হচ্ছে। এক জন ডিলারকে দৈনিক ১ হাজার কেজি চিনি, ১৫০ কেজি মসুর ডাল, ১ হাজার লিটার সয়াবিন ও ৮০০ কেজি ছোলা বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। দাম রাখা হচ্ছে চিনি কেজি ৫০ টাকা, মসুর ডাল কেজি ৫০ টাকা, ছোলা ৬০ টাকা ও সয়াবিন লিটার ৮০ টাকা। বাজারের চেয়ে টিসিবির পণ্যের মূল্য কিছুটা কম হওয়ায় চাহিদা বেড়েছে। ফলে দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে ক্রেতাদেরকে পণ্য কিনতে দেখা যাচ্ছে।

নগরীর দুই নম্বর গেট এলাকায় ট্রাকে করে টিসিবির পণ্য বিক্রি করছেন ডিলার দিদারুল আলম। তিনি বলেন, টিসিবির পণ্যের গুণগত মান অনেক উন্নত। দামও ক্রেতাদের সহনীয় পর্যায়ে রয়েছে। ফলে বেশ চাহিদা রয়েছে। আমি দৈনিক যা বরাদ্দ পাই তা বিক্রি হয়ে যায়। তবে ক্রেতারা চান চাল। তারা চাল না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছেন।

ডিলার আবদুস ছবুর ট্রাকে করে জামাল খান এলাকায় টিসিবির পণ্য বিক্রি করেন। তিনি বলেন, বরাদ্দপ্রাপ্ত পণ্য বিক্রি হয়ে যাচ্ছে। বরাদ্দ আরো বাড়ানো প্রয়োজন। মসুর ডাল বরাদ্দ কম থাকায় ক্রেতারা চাহিদা অনুপাতে পাচ্ছে না। চালের ব্যাপক চাহিদা থাকলেও বরাদ্দ না থাকায় ক্রেতারা ফেরত যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, বেশি মানুষ চলে আসায় অনেক সময় সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করা যায় না। তবে আমরা রিকশার চাকা দিয়েএবং রং দিয়ে মার্কিং করে রাখি। তারপরও অনেকে মানছেন না।

ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) চট্টগ্রাম কার্যালয়ের প্রধান কর্মকর্তা জামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, চাল খাদ্য বিভাগের বিষয় হওয়ায় আমরা চাল বিক্রি করতে পারি না। চট্টগ্রাম মহানগরীতে দৈনিক ২৩টি থেকে বাড়িয়ে ২৫টি ট্রাকের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি হবে। কিছুদিন পর টিসিবির বহরে খেজুর ও পেঁয়াজ যুক্ত হবে। আমাদের কাছে খেজুর এসেছে। চট্টগ্রামের সাতটি উপজেলায় টিসিবির পণ্য সীমিত আকারে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি উপজেলায় একটি করে ট্রাকে পণ্য বিক্রি হচ্ছে। আগামী ২০ মে পর্যন্ত টিসিবির ন্যায্যমূল্যে পণ্য বিক্রির কার্যক্রম চালু থাকবে। এছাড়া আমরা কঠোরভাবে সামাজিক দূরত্ব মানার বিষয়টি খেয়াল রাখছি।

Check Also

বাতিল হচ্ছে পিইসি-জেএসসি পরীক্ষা

জার্নাল ডেস্ক : প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষা চলতি বছর …

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৩, শনাক্ত ২৯৯৬

জার্নাল ডেস্ক : করোনায় দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে …