চট্টগ্রাম নগর আ’লীগের বর্ধিত সভায় কাদের পৃথিবীর সেরা দশজনের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজন

চট্টগ্রাম ব্যুরো:

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রোহিঙ্গা সমস্যার মতো চ্যালেঞ্জ অতিক্রম এবং বাংলাদেশ স্বল্পন্নোত দেশ থেকে উন্নয়শীল দেশে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডায়ানামিক, ক্যারিশমেটিক, ক্রিয়েটিভ লিডারশিপের জন্য সম্ভব হচ্ছে। বন্ধু প্রতীম দেশ ভারত একাত্তরেও আমাদের পাশে ছিল ভবিষ্যতে তাদের সহযোগীতার হাত অব্যাহত থাকবে। অভ্যন্তরীন রাজনীতি বা দলীয় কোন স্বার্থে আমরা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাথে কথা বলিনি, দেশকে ছোট করতে কোন নালিশ করিনি। বাংলাদেশের জাতীয় স্বার্থে রোহিঙ্গাদের পাশে ভারতকে পাশে চেয়েছি।
তিনি গতকাল শনিবার দুপুরে নগরীর এস এ খালেদ সড়কস্থ লেডিস ক্লাবে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত তৃণমূলের বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
মন্ত্রী আরো বলেন পৃথিবীর সেরা দশজন নেতার মধ্যে একজন বাংলাদেশ প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা, সমসাময়িক সৎ ও পরিশ্রী নেতাদের মধ্যে পৃথিবীর সেরাদের একজন শেখ হাসিনা।
বিএনপির কঠোর সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি সব আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে এখন বিএনপি চ্যালেঞ্জের মুখে পড়েছে। লন্ডনে বসে তারেক জিয়া কোটা সংস্কার আন্দোলনের মাধ্যমে অরাজকতার চেষ্টা করেছে। আল্লাহর রহমতে কোটা সমস্যারও সমাধান হয়েছে। এখন তারা গিয়ে পাহাড়কে ধরেছে, পাহাড়ে রক্তপাতের মধ্যে ঢুকে পড়েছে। সব আন্দোলন যখন ব্যর্থ তখন তারা পাহাড়ে ঢুকেছে। রক্তপাত করছে।
ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, ‘বিএনপি বলছে বেগম জিয়াকে ছাড়া নাকি তারা নির্বাচনে যাবে না। বিএনপি নির্বাচনে না গেলে কি বাংলাদেশের গণতন্ত্রের উপর আকাশ ভেঙে পড়বে? ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনেও বিএনপি অংশ নেয়নি, জ্বালাও-পোড়াও করেছে। মানুষ হত্যা করেছে। তাকে কি গণতন্ত্রের সূচিতা, গণতন্ত্রের সম্ভ্রম এতটুকু নষ্ট হয়েছে? বিএনপি নির্বাচনে না এলেও সংবিধান পরিবর্তন হবে না। নির্বাচন যথাসময়ে হবে।’
মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন, নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি, সহ-সভাপতি ও প্রাক্তন মন্ত্রী ডা. আফসারুল আমিন, সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন, ব্যারিষ্টার নওফেলসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দরা বক্তব্য রাখেন।
ওবায়দুল কাদের আরো বলেন উত্তর জনপদ শুকিয়ে যাচ্ছে। পানির জন্য হাহাকার। অনুরোধ করেছি ভারতের প্রধানমন্ত্রীসহ নেতৃবৃন্দকে তিস্তা নদীর পানি বন্টন, আমাদের ন্যায় সংগত হিস্যা এবং সীমান্ত চুক্তির বিষয় সংক্রান্ত বিষয়ে।’

সাইফুল//এসএমএইচ//৫ই মে, ২০১৮ ইং ২২শে বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

 

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …