চসিকের আইসোলেশন সেন্টারে রোগীদের আস্থা

0

নিজস্ব প্রতিবেদক :

করোনার চিকিৎসায় চট্টগ্রামে সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি সিটি করপোরেশন এবং ব্যক্তি উদ্যোগে গড়ে উঠেছে আইসোলেশন সেন্টার। এসব আইসোলেশন সেন্টার ইতোমধ্যে অর্জন করেছে রোগীদের আস্থা। দিন দিন বাড়ছে রোগীর সংখ্যা।

এখানে রয়েছে ১২ জন ডাক্তারসহ ৬৬ জন স্টাফ। যারা করোনায় আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবা দিচ্ছেন প্রতিনিয়ত।

আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি থাকা এক রোগী বলেন, আইসোলেশন সেন্টারের চিকিৎসকসহ সকলেই বেশ আন্তরিক। সকলে নিজ দায়িত্বে আমাদের যখন যেটা লাগে সেটা দিচ্ছেন। প্রাইভেট হাসপাতালের মতো এখানে সেবা দেওয়া হচ্ছে।

চসিক করোনা আইসোলেশন সেন্টারের পরিচালক ডা. সুশান্ত বড়ুয়া বলেন, আইসোলেশন সেন্টার চালু হওয়ার পর থেকে ১৪ জন রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এছাড়া বর্তমানে আরও ৫ জন রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

তিনি বলেন, আইসোলেশন সেন্টারে ভর্তির ব্যাপারে বেশ সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। রোগীদের গুণগত সেবা প্রদান করতে আমরা চেষ্টা করছি। চট্টগ্রামে চিকিৎসা না পেয়ে মানুষ মারা যাওয়ার যে ঘটনা ঘটছে- তা থেকে পরিত্রাণ পেতে চাই আমরা। অন্তত মারা যাওয়ার আগে চিকিৎসা সেবাটুকু পাক।

গত ১৩ জুন উদ্বোধন করা হয় এই আইসোলেশন সেন্টার৷ উদ্বোধনের আটদিন পর গত ২১ জুন চালু করা হয়। করোনা ভাইরাস সংক্রমিত রোগীদের চিকিৎসায় প্রায় ২ কোটি টাকা ব্যয়ে আইসোলেশন সেন্টারটি গড়ে তোলা হয়।

আইসোলেশন সেন্টারটি পরিচালনার জন্য সিটি করপোরেশন চিকিৎসকসহ ৬০ জনকে নিয়োগ দিয়েছে। এর আগে এখানে পদায়নের পরও যোগ না দেওয়ায় ১০ চিকিৎসক ও একজন স্টোর কিপারকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

এর আগে সীকম গ্রুপের মালিকানাধীন সিটি হল কনভেনশন সেন্টারটি করোনা রোগীর চিকিৎসায় ব্যবহারের জন্য সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুরোধের প্রেক্ষিতে সম্মতি জানান প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিরুল হক।

আমিরুল হক বলেন, করোনা মোকাবিলায় আমরাও পাশে থাকতে চাই। দেশের প্রতি দায়িত্ববোধের জায়গা থেকে ‘সিটি হল কনভেনশন সেন্টার’টি করোনার চিকিৎসায় ব্যবহারের জন্য দেয়া হয়েছে।

সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, করোনার চিকিৎসায় সিটি হল কনভেনশন সেন্টারকে আইসোলেশন সেন্টার হিসেবে চালু করা হয়েছে। চট্টগ্রামের শিল্পগ্রুপ সিকম এ আইসোলেশন সেন্টারটি ব্যবহারের সুযোগ করে দিয়েছেন।

করোনা মহামারীর সময়ে সিকমের মতো অন্য শিল্পগোষ্ঠীগুলোও এগিয়ে আসলে চট্টগ্রামের মানুষের চিকিৎসা সেবা পাওয়ার সুযোগ আরও বেশি বাড়বে বলে মন্তব্য করেন আ জ ম নাছির উদ্দীন।

Share.

About Author

Comments are closed.