‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে পড়া ইউরোপে অভিবাসনপ্রত্যাশী বাংলাদেশিরা ৷ পানির সংকট, শীতের সমস্যা তো আছেই, অভিযোগ রয়েছে ক্রোয়েশিয়া পুলিশের নির্মম নির্যাতনেরও৷

‘পাঁচ লাখ টাকা লস দিয়েও ফেরত যাবো’

সিলেট থেকে বসনিয়া আসা সাইফুর রহমানের এখন পর্যন্ত ১৫ লাখ টাকা খরচ হয়ে গেছে৷ ওমান-দুবাই সাগর পাড়ি দিয়ে আসার পর আর ফেরত যাওয়ার চিন্তা করা সম্ভব না বলেও জানান তিনি৷ তবে যেভাবে কষ্ট করে জঙ্গলে থাকতে হচ্ছে, নির্যাতন সহ্য করে ইউরোপে যাওয়ার চেষ্টা করতে হচ্ছে, তাতে এখন আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন তিনি৷ এখন কেউ যদি কেউ ১০ লাখ টাকাও তাকে দিতে চায়, তাহলে পাঁচ লাখ টাকা লস দিয়েও দেশে ফেরত যেতে চান তিনি৷

কুকুরের কামড়, ১৪ সেলাই

 

ডান হাতে ১৪টি সেলাই, একটি রগ কেটে গেছে একেবারেই৷ হাতে এখন আর শক্তিও পান না সিলেটের শফিক মিয়া৷ তার অভিযোগ, পুলিশের কুকুর কামড়ে তার এই অবস্থা করেছে৷ এখন চার মাস ধরে মিরাল ক্যাম্পে আছেন শফিক৷ তবে এরই মধ্যে তার কয়েক লাখ টাকা খরচ হয়ে গেছে৷ ফলে দেশে ফেরার সুযোগও আর দেখছেন না তিনি৷ সুস্থ হয়ে উঠলেই আবার সীমান্ত পাড়ি দেয়ার চেষ্টা করবেন বলে  জানিয়েছেন শফিক৷

ওমানে ছয় মাস বেতন মেলেনি

 

ইউরোপে যাওয়ার স্বপ্ন দেখে এখন বসনিয়ার জঙ্গলে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন মাদারিপুরের ইয়াসিন খান৷ ওমানে ফ্লাইবোর্ডের কারখানায় দীর্ঘদিন কাজ করেছেন তিনি৷ কিন্তু দালালের খপ্পরে পড়ে বেতন পাননি ছয় মাস৷ ফলে ইউরোপে স্থায়ী হওয়ার স্বপ্নে ওমান থেকে ইরান, তুরস্ক, গ্রিস, ম্যাসিডোনিয়া, সার্বিয়া হয়ে বসনিয়া আসেন তিনি৷ এই রাস্তা অতিক্রম করতে তার লেগেছে দুই বছর৷

বিজনেস ভিসায় তুরস্ক, তারপর বসনিয়া

মেরাজ শেখের বাড়ি গোপালগঞ্জ৷ বিজনেস ভিসায় তুরস্ক এসে সেখান থেকে অবৈধভাবে গ্রিসে আসেন তিনি৷ বসনিয়ার জঙ্গলে অতি কষ্টে থাকলেও এখনও বাঙালি খাবারের মায়া ছাড়তে পারেননি৷ কষ্ট করে জল, চাল ও লাকড়ি সংগ্রহ করে জঙ্গলেই চলছে ভাত রান্নার আয়োজন৷ এরই মধ্যে বসনিয়ায় তার এক বছর হয়ে গেছে৷ তিনবার সীমান্ত পাড়ির চেষ্টা চালিয়েছেন তিনি৷ খরচ হয়ে গেছে ১৩ লাখ টাকা, আরো অন্তত চার লাখ টাকা লাগবে বলে মনে করছেন মিরাজ।

বড় পরিবার চালাতে নিরুপায় হয়ে…

একদিন আগেই ‘গেমে’ গিয়ে স্লোভেনিয়ার পুলিশের হাতে আটকা পড়েন মৌলভীবাজারের শেখ লাকী৷ বসনিয়ায় ফেরত পাঠানোর আগে সীমান্তে তাকে ক্রোয়েশিয়া পুলিশ মারধরও করেছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি৷ ওমানে পাঁচ বছর কাটিয়েও দেশে পরিবারকে তেমন একটা আর্থিক সাহায্য করতে পারেননি তিনি৷ ফলে পরিবারের কথা চিন্তা করেই ফ্রান্সে যাওয়ার লক্ষ্যে রওয়ানা হয়েছেন লাকী৷ খরচ হয়ে গেছে ১৭ লাখ টাকা৷

ক্রোয়েশিয়া পুলিশের অত্যাচার

 

ক্রোয়েশিয়া সীমান্ত পাড়ি দেয়ার সময় পুলিশের নির্মম নির্যাতনের চিত্র ডয়চে ভেলেকে দেখাচ্ছেন সুনামগঞ্জের নিখিল৷ জাতিসংঘের অভিবাসী বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থা আইওএম তাকে সীমান্ত থেকে নিয়ে এসেছে৷ এখন মিরাল ক্যাম্পে স্থান পেয়েছেন তিনি৷ নিখিলের সারা গায়ে পুলিশের লাঠির বাড়ির দাগ৷

রাজনৈতিক কারণে বিদেশ পাড়ি

 

সিলেটে রাজনৈতিক আক্রোশের শিকার হয়ে এখন বসনিয়ার মিরাল ক্যাম্পে আছেন বলে দাবি শায়েল আহমেদের৷ গ্রিস ইউরোপীয় ইউনিয়নের সদস্য হলেও সেখান থেকে অন্য দেশে যাওয়া বেশ কষ্টকর৷ এজন্য বাধ্য হয়ে এখন বসনিয়ায় এসে সেখান থেকে ইটালি বা ফ্রান্স যাওয়ার চেষ্টা করছেন শায়েল৷- ডয়চে ভেলে

বিডিজা৩৬৫/আহা

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনায় মামলা, গ্রেফতার ১

জার্নাল ডেস্কঃ সংসদ সদস্য হাজি সেলিমের গাড়ি থেকে বের হয়ে নৌবাহিনীর এক কর্মকতাকে মারধরের ঘটনায় …