ডাবল সেঞ্চুরি হলো না পাকিস্তানের বাবরের

ক্রীড়া ডেস্ক :

দুই বছরের অপেক্ষার পর টেস্টে সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম। কোচিং স্টাফ থেকে শুরু করে করাচির গ্যালারি সবাই তার ডাবল সেঞ্চুরির উদযাপনের অপেক্ষায় ছিল। কে জানে হয়ত অস্ট্রেলিয়ার খেলোয়াড়রাও হাততালি দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।  শেষ পর্যন্ত চার রান স্বল্পতায় ১৯৬ রান করে নাথান লায়নের বলে আউট হয়ে গেছেন। আক্ষেপে পুড়ল পুরো গ্যালারি।

বাবর আউট হয়ে গেলেও চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন পাক অধিনায়ক। টেস্টে তার করা ১৯৬ রানই তালিকায় এখন সবার ওপরে। এতদিন সর্বোচ্চ রেকর্ড ছিল মাইকেল আর্থারটনের। ইংলিশ এ ব্যাটার দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ১৯৯৫ সালে চতুর্থ ইনিংসে ১৮৫ রানে অপরাজিত ছিলেন।

বাবরের আউটের পরের বলেই নতুন ব্যাটার ফাহিম আশরাফকেও শিকার বানিয়েছেন নাথান লায়ন। শেষ বিকেলে করাচিতে বিষদাঁত বসাচ্ছেন অস্ট্রেলিয়ার এ স্পিনার।অধিনায়ক বাবর আজম ও ওপেনার আব্দুল্লাহ শফিকের ১৭১ রানের পার্টনারশিপে চেপে চতুর্থ দিনের শেষে পাকিস্তানের সংগ্রহ ছিল ২ উইকেটে ১৯২ রান। পঞ্চম দিনে শফিক ব্যক্তিগত ৯৬ রানের মাথায় আউট হয়ে গেলেও দলকে স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন পাক অধিনায়ক। তবে শেষমেশ তিনিও সাজঘরে ফিরলেন।

টেস্ট ক্রিকেটে সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড ওয়েস্ট ইন্ডিজের। ২০০৩ সালের সেই অ্যান্টিগা টেস্টে ৪১৮ রান তাড়া করে জয় পেয়েছিল তারা। সেদিন শিভনারায়ন চন্দরপলের ১০৫ ও রামনরেশ সারওয়ানের ১০৪ রানের ইনিংসে ভর করে অসাধ্য সাধন করেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। করাচি টেস্টে আজ বাবর আজম আর আব্দুল্লাহ শফিক যেন সেদিনের চন্দরপল ও সারওয়ান। তবে ম্যাচের বাকি আরও অনেকটাই। যেখানে ফেবারিট এখনো অস্ট্রেলিয়া। তবে পঞ্চম দিনের শেষবেলাটা শেষ হবে রোমাঞ্চকর এক ম্যাচের সমাপ্তির প্রতিশ্রুতি নিয়ে।

৫০৬ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে পাকিস্তান শুরু করে যেখানে প্রথম ইনিংস শেষ হয়েছিল সেখান থেকেই। ইনিংসের শুরুতেই আবার ব্যাটিং বিপর্যয় পাকিস্তানের। মাত্র ১ রান করেই প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন ইমাম উল হক। দলীয় রান তখন মাত্র ২। লায়নের বলে ইমাম উল হক ফেরার পরে টিকে থাকার সংগ্রামে নামেন শফিক ও আজহার আলী। ম্যাচ বাঁচাতে দুদিনে মোট ১৭২ ওভার উইকেটে পড়ে থাকতে হবে। সে লক্ষ্যে ধৈর্যের প্রতিমূর্তি হয়ে ক্রিজ আঁকড়ে ধরেন দুজনে। ২২.২ বলে যখন আজহার আলী গ্রিনের বলে আউট হলেন তখন পাকিস্তানের সংগ্রহ ২১ রান। ওভার প্রতি রান রেট ১ এরও কম!

বাবর আজম নামার পর কিছুটা খোলস ছেড়ে ব্যাট করতে থাকেন শফিক। ১৫৩ বলে তুলে নেন অর্ধশতক। তবে অন্যপ্রান্তে সহজাত আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করেছেন বাবর। ৮৩ বল লেগেছে তার অর্ধশতক তুলে নিতে। চতুর্থ দিনের শেষ পর্যন্ত অবিচ্ছিন্ন থাকেন দুজন। তৃতীয় উইকেটে ৩৬২ বলে ১৭১ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়েন। ১৯৮ বলে ১০২ রানে অপরাজিত ছিলেন বাবর। অন্য প্রান্তে ২২৬ বলে ৭১ রান করেছিলেন শফিক।

তৃতীয় দিন থেকে আলোচনায় ছিল অস্ট্রেলিয়ান পেসারদের রিভার্স সুইং। এই রিভার্স সুইংয়েই নাকি প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানের সর্বনাশ। তবে আজ বাবর-শফিক অস্ট্রেলিয়ানদের রিভার্স সুইং খেললেন স্বাচ্ছন্দ্যে। ৭৬তম ওভারে প্যাট কামিন্সের রিভার্স সুইংয়েই ব্যাট চালিয়ে সেঞ্চুরি তুলে নেন বাবর।

Check Also

কেন্দ্রীয় ব্যাংক ছোট-বড় সব ঋণে ডিসেম্বর পর্যন্ত সর্বোচ্চ ৭৫% মরাটরিয়াম সুবিধা দিয়েছে

জার্নাল ডেস্ক : বৃহৎ শিল্প, এসএমই, কৃষি ঋণসহ সকল ধরনের ছোট বড় ঋণে পরিশোধিত ঋণের …

অ্যাকাউন্টের তথ্য সুরক্ষায় হোয়াটসঅ্যাপের নতুন ফিচার

তথ্য ও প্রযুক্ত ডেস্ক অ্যাকাউন্টে থাকা ব্যক্তিগত তথ্য, ঠিকানাসহ অন্যান্য বিষয় কে বা কারা দেখতে …