প্রায় ৩০০ কুমির পিটিয়ে মারলো গ্রামবাসী

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক :

রাগের বশে হাতুড়ি, ছুরি আর মুগুর দিয়ে প্রায় ৩০০ কুমির পিটিয়ে মারলেন গ্রামবাসীরা।

ইন্দোনেশিয়ার পশ্চিম পাপুয়ায় ঘটেছে এমন ঘটনা। স্থানীয় এক  ব্যক্তি ঘাসের খোঁজে বেরিয়েছিলেন। আর সেখানেই পড়ে গেলেন কুমিরের খপ্পরে। তার চিৎকার শুনেই তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে ছুটে যান স্থানীয় বাসিন্দারা। হাজার চেষ্টার পরেও শেষমেশ বাঁচানো যায়নি ৪৮ বছরের ওই ব্যক্তিকে।

ইন্দোনেশিয়ার সোরোঙ্গ জেলার ওই গ্রামটিতে রয়েছে সরীসৃপ প্রজনন কেন্দ্র। ওই ব্যক্তির মৃত্যুর কিছুক্ষণের মধ্যেই ক্ষিপ্ত জনতা ঢুকে পড়ে ওই প্রজনন কেন্দ্রে। হাতুড়ি, ছুরি আর মুগুর দিয়ে প্রায় ২৯২ টি কুমিরকে মেরে ফেলেন।

ইন্দোনেশিয়ার প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংস্থার তরফে বলা হয়েছে, ‘ব্যক্তিটির বয়স ৪৮ এর ঘরে। প্রাথমিক ভাবে অনুমান করা হচ্ছে, ঘাস সংগ্রহ করতে গিয়েই কুমিরের আক্রমণের মুখে পড়তে হয় তাকে।’

ওই সরীসৃপ প্রজনন কেন্দ্রেরই এক কর্মী বাসার মানুল্লাঙ্গ বলেন, ‘‘আমাদেরই এক কর্মী ওই ব্যক্তির চিৎকার শুনতে পান। সঙ্গে সঙ্গে তিনি ছুটে যান ঘটনাস্থলে। আর দেখেন কুমিরের আক্রমণ থেকে নিজেকে বাঁচানোর চেষ্টা করে যাচ্ছেন ওই ব্যক্তি। স্থানীয়রা ওই ব্যক্তির মৃতদেহ শনাক্ত করার পরই আমাদের ফার্মে ঢুকে কুমিরগুলোকে মেরে ফেলে।’’

বাসার মানুল্লাঙ্গের বক্তব্য, ২০১৩ সালে তাদের ফার্মকে লাইসেন্স দেওয়া হয়। মূলত সল্ট ওয়াটার আর নিউ গিনির কুমিরদের সংরক্ষণ করা হয় এই প্রজনন কেন্দ্রে। তবে স্থানীয়দের যাতে কোনও অসুবিধা না হয়, সেই শর্তেই মিলেছিল লাইসেন্স। তবে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে আর না হয় সে দিক খতিয়ে দেখা উচিত কর্তৃপক্ষের। নিরাপত্তা আরও জোরদার করা উচিৎ।

সাব্বির// এসএমএইচ//১৭ই জুলাই, ২০১৮ ইং ২রা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …