রানীনগরে সাব-রেজিস্টার ও দলিল লেখকের বিরুদ্ধে ভূয়া দলিল রেজিষ্ট্রির অভিযোগ

ফারমান আলী,নওগাঁ প্রতিনিধি:

 নওগাঁর রানীনগরে সাব-রেজিস্টার ও দলিল লেখক সাইদুল ইসলামের যোগসাজসে ভূয়া দলিল রেজিষ্ট্রির অভিযোগ উঠেছে। গত সোমবার (২৩ এপ্রিল) রানীনগর সাব-রেজিস্টার অফিসে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনা জানাজানি হওয়ার পরের দিন মঙ্গলবার আবারও জমির মূল মালিককে ওই জমিটি ফেরত দেয়া হয়েছে। ঘটনার পর থেকে দলিল লেখক সমিতির মধ্যে গুঞ্জন চলছে।

এছাড়া এলাকাবাসীর মধ্যে এক প্রকার আতঙ্ক বিরাজ করছে। যদি এভাবেই চলতে থাকে তাহলে জমির মুল মালিক ছাড়াই রেজিষ্ট্রি হবে। জমির মালিকরা প্রতারনার শিকার হবেন। এ ঘটনার সাথে সম্পৃক্তদের শাস্তির দাবী জানিয়েছেন সচেতন মহল।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সপ্তাহে তিনদিন (রবি, সোম ও মঙ্গলবার) জমি রেজিষ্ট্রি হয়। উপজেলার দক্ষিণ রাজাপুর গ্রামের মমতাজ হোসেনের(৭৬) ছেলে আক্তারুজ্জামান সাগর(৩৬)। একই উপজেলার করজগ্রাম গ্রামের আনিছুর রহমানকে বাবা সাজিয়ে আক্তারুজ্জামান সাগর গত সোমবার প্রায় ১৯ বিঘা জমি রেজিষ্ট্রি করে নেয়। এনিয়ে দলিল লেখক সাইদুল ইসলামের সাথে আক্তারুজ্জামান সাগরের ৬০ হাজার টাকা চুক্তি হয়। জমি রেজিষ্ট্রির দিনে ৪৫ হাজার টাকা পরিশোধ করেন আক্তারুজ্জামান সাগর। অবশিষ্ট্য টাকা বাকীঁ রাখেন।

জমি রেজিষ্ট্রির সময় অপর এক দলিল লেখক বিষয়টি বুঝতে পারেন যে আক্তারুজ্জামান সাগরের বাবা আনিছুর রহমান না। আনিছুর রহমানকে বাবা সাজিয়ে জমি রেজিষ্ট্রি নিয়েছেন আক্তারুজ্জামান সাগর। বিষয়টি প্রকাশ পাওয়ার পর গুঞ্জন শুরু হয়। পরদিন মঙ্গলবার দলিল লেখক সাইদুল ইসলাম আবারও সাগরকে দাতা সাজিয়ে তার আসল বাবা মমতাজকে ফেরত রেজিষ্ট্রি করে দেয়। তবে সাব-রেজিস্টার দু’দলিল তার নিজ হেফাজতে রেখেছেন বলে জানা গেছে। আর এ কাজে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সাব-রেজিস্টার ও মুহরি অতোপ্রতভাবে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে।

এলকাবাসীদের অভিযোগ, যেখানে ভুয়া বাবা সাজিয়ে ভূয়া দলিল রেজিষ্ট্রি হয়েছে। বিষয়টি প্রকাশের পর আবার ভূয়া দলিল মূলে কিভাবে জমি রেজিষ্ট্রি করে জমির মূল মালিককে ফেরত দেয়া সম্ভব। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষ দোষীদের শাস্তির জানিয়েছেন সচেতন এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে দলিল লেখক সাইদুল ইসলাম বলেন, আমিতো এলাকার সব মানুষকে চিনি না। ওই লোকটি যে সাগরের বাবা নয়, তা আমার জানা ছিলো না। জমি রেজিষ্ট্রির সময় ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপিতে বুঝা যাচ্ছিল না। বিষয়টি জানার পরই সাব-রেজিস্ট্রারকে জানাই। তিনি আবার ফেরত রেজিষ্ট্রি করতে বলেন। একদিন পর আমি নিজ খরচে আবার জমি রেজিষ্ট্রি করে দেয়।

রানীনগর দলিল লেখক সমিতির সভাপতি হাফিজুর রহমান বাচ্চু বলেন, বিষয়টি নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। ঘটনার সত্যটা উদঘাটন করতে হবে। তারপর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

রানীনগর সাব-রেজিস্টার ইসমাঈল হোসেন তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ভূয়া কি অভূয়া এটা আমি ঠিক বলতে পারবো না। যদি দলিল হয়েই থাকে, তাহলে হয়েছে। দাতা-গ্রহীতা কারা এবং তাদের স্বার্থে কি হয়েছে না হয়েছে তারাই বলতে পারবে। এছাড়া এটি আদালত বলতে পারবেন। আর যদি এরকম হয়ে থাকে তাহলে মুহরিকে শোকজ করা হবে এবং উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।

সাব্বির// এসএমএইচ//৩০শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং ১৭ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …