সাক্ষী না থাকায় খালাস পেল গৃহবধূ হত্যা মামলার আসামিরা

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি :

 চট্টগ্রামের আনোয়ারায় গৃহবধূ সুপর্ণা শীলকে হত্যার পর লাশ পুড়ে ফেলার ঘটনায় দায়েরকৃত মামলা থেকে সকল আসামিকে বেকসুর খালাস দিয়েছে চট্টগ্রামের একটি আদালত। ঘটনার ‘আলামত ও চাক্ষুষ সাক্ষীর’ অভাবে চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন অপরাধ দমন ট্র্যাইব্যুনালের জজ বেগম রোখসানা পারভীন এ রায় দেন।

চট্টগ্রাম নারী ও শিশু নির্যাতন অপরাধ দমন ট্র্যাইব্যুনালে কর্তব্যরত রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলী (পিপি) এডভোকেট জেসমিন আক্তার এই তথ্য পরিবর্তনকে জানান।

বাদীপক্ষের আইনজীবী জিয়া হাবীব আহসান জানান, নিরপেক্ষ সাক্ষী দ্বারা মামলাটি প্রমাণিত হওয়ায় আসামিদের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড প্রার্থনা করেছিলেন। কিন্তু আদালত আসামিদের বেকসুর খালাস দিয়েছেন। একই সাথে আলামত (ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন) ও চাক্ষুষ সাক্ষীর অভাবে আসাসিদের বিরুদ্ধে আনা হত্যার অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়নি বলে রায়ের পর্যবেক্ষণে উল্লেখ করেন আদালত। রায়ের কপি পাওয়ার পর উচ্চ আদালতে আপিল করবেন বলে জানান জিয়া হাবীব আহসান।

আদালত সূত্রে জানাগেছে, ২০১২ সালের ৪ জানুয়ারি আনোয়ারার বারশত ইউনিয়নের বোয়ালিয়া গ্রামে গৃহবধূ সুপর্ণা শীলকে যৌতুকের জন্য হত্যা করে স্বামীসহ শ্বশুর বাড়ির লোকজন। পরে তড়িঘড়ি করে লাশ দাহ করেন তারা।

এই ঘটনায় নিহতের মা রমা শীল বাদী হয়ে আনোয়ারা থানায় একটি হত্যা মামলা (নম্বর ১৪৮/২০১২) দায়ের করেন। মামলায় সপর্ণা শীলের স্বামী কৃষ্ণপদ শীল, দেবর পলাশ শীল, শাশুড়ি রেণুবালা শীল এবং ভাসুর সুনীল কান্তি শীলকে আসামি করা হয়। তবে লাশ পুড়ে ফেলায় (ময়নাতদন্ত করা যায়নি) আলামত নষ্ট হয়ে যায়। দীর্ঘ পাঁচ বছর পর মঙ্গলবার দুপুরে এই রায় প্রদান করেন আদালত

সাইফুল //এসএমএইচ//৯ই মে, ২০১৮ ইং ২৬শে বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …