হাইকোর্টের আদেশে নয়, মোটরযান আইনে ক্ষতিপূরণ দেবে জাবালে নূর

নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় নিহত দুই শিক্ষার্থীর পরিবারকে এক সপ্তাহের মধ্যে তাৎক্ষণিক ক্ষতিপূরণ হিসেবে পাঁচ লাখ টাকা করে মোট ১০ লাখ টাকা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। তবে জাবালে নূর পরিবহন কোম্পানির চেয়ারম্যান জানিয়েছে, তারা ক্ষতিপূরণ দিলে মোটরযান আইনে দিবে।

সোমবার (৩০ জুলাই) জনস্বার্থে দায়ের করা এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। জাবালে নূর পরিবহন কর্তৃপক্ষকে এই ক্ষতিপূরণ পরিশোধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

আদালতে রিট আবেদনকারী আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজল নিজে শুনানিতে অংশ নেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল ফরিদা ইয়াসমিন। রিট আবেদনে স্বরাষ্ট্র সচিব, সড়ক পরিবহন সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক, ঢাকার পুলিশ কমিশনার, অতিরিক্ত কমিশনার (ট্রাফিক), বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) এবং জাবালে নূর পরিবহন কর্তৃপক্ষকে বিবাদী করা হয়েছে।

এবিষয়ে জাবালে নূর পরিবহনের চেয়ারম্যান মো. জাকির হোসেন জানান, তারা মোটরযান আইনে ক্ষতিপূরণ দেবে।

তিনি বলেন, ‘আগামীকাল (আজ) মঙ্গলবার আমরা বিষয়টি নিয়ে আদালতে যাবো। আইন অনুযায়ী আমরা যদি ক্ষতিপূরণ দিতে হয় দেবো। তবে মোটরযান আইনে যেভাবে বলা আছে সেভাবে দেবো।’

মোটরযান অধ্যাদেশ আইন- ১৯৮৩ বলা আছে, দুর্ঘটনার ক্ষতিপূরণের পরিমাণ হবে মাত্র ২০ হাজার টাকা। এই আইন অনুযায়ী বিচার হলে নিহত পরিবার ২০ হাজার টাকার বেশি পাওয়ার সুযোগ নেই।

জাকির হোসেন বলেন, ‘মানবিক কারণে ক্ষতিপূরণ দেওয়া উচিত। কিন্তু আমাদের ওপর প্রশাসন দিয়ে যেভাবে চাপ দেওয়া হয়েছে সেটা এখন আমরা কিভাবে দিই? আমাদের নামে তো মামলা করা হয়েছে।’

জাকির হোসেন আরও বলেন, ‘আমরা চালকদের কোনো প্রশ্রয় দিচ্ছি না। তাদেরকে পুলিশে ধরিয়ে দিয়েছি। আইন অনুযায়ী তাদের বিচার হওয়া উচিৎ। আমরাও চাই তাদের শাস্তি হোক। বিষয়টি আমরা আইনিভাবে মোকাবেলা করবো।’

প্রসঙ্গত, রোববার (২৯ জুলাই) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনের বিমানবন্দর সড়কে আবদুল্লাহপুর থেকে মোহাম্মদপুর রুটে চলাচলকারী জাবালে নূর পরিবহন লিমিটেডের একটি বাসের চালক হঠাৎ নিয়ন্ত্রণ হারান। এ সময় সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা শিক্ষার্থীদের ওপর বাসটি উঠে যায়। এতে ঘটনাস্থলে শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আবদুল করিম ও একই কলেজের ছাত্রী দিয়া খানম প্রাণ হারায়। গুরুতর আহত শিক্ষার্থীদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

বাসচাপায় প্রাণহানির ঘটনায় রোববার রাতেই ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন নিহত শিক্ষার্থী দিয়া খানমের (মিম) বাবা জাহাঙ্গীর আলম। দুই বাসচালক ও দুই সহকারীকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। গ্রেপ্তার হওয়া দুই বাসচালক হলেন সোহাগ ও যুবায়ের। তাদের রাজধানীর মিরপুর থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সাব্বির// এসএমএইচ//৩১শে জুলাই, ২০১৮ ইং ১৬ই শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ

Check Also

বিপদ জয় করে বিজয়ের দেশে ফিরে আসা

জার্নাল ডেস্ক : জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর জাহাজ ‘বিজয়’  সাক্ষাৎ বিপদ …

‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি’

জার্নাল ডেস্ক ‘টাকা দিয়ে বিপদ কিনেছি ‘।    এভাবেই নিজের হতাশার কথা  জানিয়েছেন বসনিয়ায় আটকে …