৭০ভাগ ব্যবসায়ীর বিরোধিতার পরও খুলছে তামাকুণ্ডি

৭০ শতাংশ ব্যবসায়ীদের বিরোধিতার মধ্যেই আগামি ১০ তারিখ থেকে মার্কেট, শপিংমল ও দোকানপাট খোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তামাকুণ্ডি লেইন বণিক সমিতি। ঈদকে সামনে রেখে শর্ত সাপেক্ষে আগামি ১০ মে থেকে হাটবাজার, ব্যবসাকেন্দ্র, দোকানপাট শপিংমলগুলো খুলে দেয়া হবে সরকারি এমন সিদ্ধান্তের পর গতকাল সোমবার বণিক সমিতির ফেসবুক পেজে পোলের (ভোটের) মাধ্যমে এ সংক্রান্তে ব্যবসায়ীদের সিদ্ধান্ত জানতে চায় ব্যবসায়ীদের এ সংগঠন। সেখানে ৭০ শতাংশ ব্যবসায়ী-কর্মচারি দোকানপাট খোলার বিরোধিতা জানায়।

সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ জানিয়েছে সরকারি সিদ্ধান্ত শেষ পর্যন্ত চূড়ান্ত থাকলে তারা শপিংমল, মার্কেট ও দোকানপাট খোলার সিদ্ধান্তে রয়েছেন। সরকারিশর্ত অনুযায়ি ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে ব্যবসা পরিচালনা করতে ব্যবসায়ীদের কঠোর নির্দেশনা দিবেন তারা। ব্যবসায়ীরা স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন করছেন কিনা বিষয়টিও নজরদারিতে রাখবেন।

অন্যদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যবসায়ী জানান, ব্যবসায়ী সমিতি থেকে যে সিন্ধাই আসুক না কেন তারা নিজেদের ও কর্মচারীদের স্বাস্থ্যসুরক্ষার কথা চিন্তা করে দোকান খুলবেন না। তারা বলছেন, পাইকারি ক্রেতাদের স্বাস্থ্যবিধি মানাতে সহজ হলেও খুচরা ব্যবসায়ীদের নিয়ন্ত্রণে রাখা দুঃসাধ্য ব্যাপার হবে।

তামাকুণ্ডি লেইন বণিক সমিতির অধিকাংশ ব্যবসায়ী সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার। করোনা প্রাদুর্ভাবের শুরুতেই সাতকানিয়াকে করোনার হটস্পট হিসেবে ঘোষণা করে চট্টগ্রামের স্বাস্থ্যবিভাগ। এছাড়া লোহাগাড়া উপজেলায় প্রতিদিন বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এমন পরিস্থিতিতে সমিতির এ সিদ্ধান্ত আত্মঘাতী বলে মনে করছেন অধিকাংশ ব্যবসায়ী-কর্মচারি।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ১১০টি মার্কেট এই সমিতির অন্তভুক্ত রয়েছে। এসব মার্কেটের ১২ হাজারের মতো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে যেখানে কাজ করছে প্রায় ৫০ হাজারের অধিক কর্মচারি। যার সিংহভাগ সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার বাসিন্দা। সরকারি ছুটির পর সবাই নিজনিজ গ্রামে অবস্থান করছেন। দোকানপাট খোলার পর কর্মচারিরা অবশ্যই হু হু করে নগরীতে প্রবেশ করবেন। এতে করে যেমন ব্যবসায়ীদের ঝুঁকি তেমনি সম্ভাবনা রয়েছে নগরজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার।

তামাকুণ্ডি বণিক সমিতির আওতাভুক্ত হাজী ছালেহ ম্যানসন ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আরিফুল হক একটি পোস্টে কমেন্ট করেন ‘আমি তামাকুণ্ডি বণিক সমিতির আওতাভুক্ত হাজী ছালেহ ম্যানসন ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হিসেবে আমার মতামত তুলে ধরলামঃ মার্কেট/শপিংমল খোলে দেওয়া একটি হঠকারী ও আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত। জীবনের চেয়ে জীবিকা কখনো বড় নয়। সরকারের কাছে আপনি কেবলমাত্র একটি সংখ্যা। আর আপনি আপনার মা, বাবা, ভাই-বোন, স্ত্রী, সন্তান, সমাজ ও পরিবারের কাছে আপনি কতটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা আপনার বিবেচনা? তাই এবারে ঈদটা আমরা ঘরে বসে কাটায়। নিজে সুস্থ থাকি। পরিবার, সমাজ ও দেশটাকে নিরাপদ রাখি।

লিংকন আহমেদ নামে এক ব্যক্তি লিখেন, ‘প্রথমে পুলিশ কমিশনারকে দোকান ওপেন করার জন্য রিকুয়েস্ট করেন।’
 
তামাকুণ্ডি লেইন বনিক সমিতির সদস্য আসিফ ইকবাল সিভয়েসকে বলেন, সবকিছু বিবেচনায় অনলাইনের মাধ্যমে ভোটাভুটি হয়েছে। এরমধ্যে ৭০ ভাগ দোকানি দোকান না খোলার পক্ষে এবং বাকি ৩০ ভাগ দোকান খোলার পক্ষে ভোট দিয়েছেন। বণিক সমিতি মার্কেট ও দোকানপাট খোলার সিদ্ধান্ত দিলেও আমি ব্যক্তিগতভাবে কর্মচারীদের ছুটি দিয়ে আমার দোকান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

মার্কেট ও দোকানপাট খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানতে কথা হয় তামাকুণ্ডি লেইন বণিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাম্মেল হকের সাথে। তিনি জানান, অন্য সমিতিগুলোর মতো আমাদের সমিতিতে দুয়েকটি মার্কেট না যে, আমরা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত দিতে পারি।

সরকারের ঘোষণা বহাল থাকলে আগামি (১০ মে) আমরা মার্কেট খোলা রাখবো। আমাদের ব্যবসায়ীরা রমজানের আগেই ঈদের জন্য মালামাল কিনে ফেলছে।

Check Also

বাতিল হচ্ছে পিইসি-জেএসসি পরীক্ষা

জার্নাল ডেস্ক : প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী (পিইসি) ও জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষা চলতি বছর …

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৩, শনাক্ত ২৯৯৬

জার্নাল ডেস্ক : করোনায় দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে …