ফের পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ!

0

বিডিজার্নাল ক্রীড়া ডেস্ক :

ফের পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ পাতানোর অভিযোগ উঠেছে। ইংল্যান্ড-পাকিস্তানের মধ্যকার তৃতীয় ওয়ানডেটি পাতানো ছিল বলে দাবি করছে ডেইলি মেইল পত্রিকা। আইসিসির দুর্নীতি-বিরোধী ইউনিটও (আকসু) এই ম্যাচটিকে সন্দেহের চোখে দেখছে।
এই ম্যাচে তিন পাকিস্তানি ব্যাটসম্যানের রান আউট হওয়া, ফ্ল্যাট ব্যাটিং উইকেটে দলের ২০৮ রানে অলআউট হওয়া কিংবা রান তাড়া করতে নেমে একপর্যায়ে ৯৩ / ৪ হয়ে যাওয়ার পরেও খুব সহজেই ইংল্যান্ডের ম্যাচটি জিতে যাওয়াই মেলে দিয়েছে সন্দেহের ডালপালা।
পাকিস্তান কোচ ওয়াকার ইউনিস অবশ্য ম্যাচ পাতানোর এই অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি মঙ্গলবারের ম্যাচে দলের পরাজয় কিংবা পরাজয়ের ধরনকে দুর্ভাগ্যজনক বললেও জোর গলাতেই বলেছেন, এ ব্যাপারে তিনি দলের কোনো খেলোয়াড়কে বিন্দুমাত্রও সন্দেহ করেন না, ‘এই অভিযোগটা আমি নানা জায়গাতে শুনছি। তবে আমি আমার দলের খেলোয়াড়দের ব্যাপারে খুবই পরিষ্কার এবং নিশ্চিন্ত।’
ম্যাচ পাতানোর কেলেঙ্কারিতে পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের জড়িয়ে পড়া নতুন কিছু নয়। ১৯৯৫ সালেই দুই অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার মার্ক ওয়াহ ও শেন ওয়ার্ন সে সময়কার পাকিস্তান অধিনায়ক সেলিম মালিককে অভিযুক্ত করেছিলেন। তাদের অভিযোগ ছিল, মালিক নাকি খারাপ খেলার জন্য তাদের ঘুষের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। মার্ক ওয়াহ আর শেন ওয়ার্নের অভিযোগ পাকিস্তান সরকারকে ব্যাপারটি নিয়ে তদন্ত করতে বাধ্য করেছিল। ২০০০ সালে সেলিম মালিককে ম্যাচ পাতানোর দুর্নীতিতে জড়িত থাকার অভিযোগে ক্রিকেট থেকে আজীবন নিষিদ্ধ করা হয়। পাকিস্তান সরকারের তদন্তে তখন জরিমানা করা হয়েছিল ওয়াসিম আকরাম, ওয়াকার ইউনিস ও মুশতাক আহমেদকে। ২০১০ সালে স্পট ফিক্সিং-কাণ্ডে নিজেদের জড়িয়ে ক্রিকেট থেকে বহিষ্কৃত হন মোহাম্মদ আমির, সালমান বাট ও মোহাম্মদ আসিফ। বিভিন্ন মেয়াদে তাদের কারাভোগও করতে হয়েছে।

বিডিজার্নাল৩৬৫ডটকম// পিবি/ এসএমএইচ// ২১ নভেম্বর২০১৫

Share.

About Author

Leave A Reply