বিশ্বের বিভিন্ন স্থানের চমকে দেওয়া কিছু যৌনরীতি

0

বিডিজার্নাল প্রতিনিধি :

এ দুনিয়া বড়ই বিচিত্র। বিচিত্র মানুষের রীতিনীতিও। পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে আর এক প্রান্তে মানুষের সংস্কৃতি, রীতি-নীতি সম্পূর্ণ বিপরীত। এ কারণেই পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে যৌনতা নিয়ে তৈরি হয়েছে আজব কিছু নিয়ম কানুন। যেমন, স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয় সেই কারণে কেউ আবার শারীরিক সম্পর্কে আবদ্ধ হওয়ার সময়েও অন্তর্বাস পরে থাকেন। বিশ্বজুড়ে তেমনই কিছু অবাক করা যৌনরীতি নিয়ে আজকের আয়োজন :

** পাপুয়া নিউগিনির ট্রব্রিয়ানদার উপজাতির মধ্যে বিশ্বাস, ৬ থেকে ১২ বছর বয়সের মধ্যেই শারীরিক সম্পর্ক শুরু করা উচিত।

** অতীতে এটা বিশ্বাস ছিল যে নিল নদ মিশরের দেবতা অটমের ইজাকুলেশনের ফলে সৃষ্ট। এই বিশ্বাস থেকেই ফারাওরা এই নদীতে স্বমেহন করতেন।

** নেপালের কয়েকটি উপজাতি নিজেদের পরিবারের মধ্যে সেক্সুয়াল পার্টনার অদলবদল করে নিতেন। একে বলে পলিঅ্যান্ড্রি। তাঁদের বিশ্বাস ছিল, এই রীতি উপজাতির পপুলেশনের ভারসাম্য বজায় রাখবে।

** ফ্রান্সের মারকিউসাস আইল্যান্ডের রীতি অনুযায়ী সেখানকার মানুষেরা নিজেদের পার্টনারকে অন্যের সঙ্গে যৌন সঙ্গমে লিপ্ত হতে দিতেন। এবং নিজের পার্টনারের সঙ্গে অন্যের সেক্স করার এই দৃশ্য তাঁরা দেখতেন।

** নিউ গিনির আর এক উপজাতি সাম্বিয়ানদের রীতি আবার অন্য রকম। তাঁরা ঋতুচক্রের সময় ছেলে এবং মেয়েদের সম্পূর্ণ আলাদা করে রাখে।

** মিশরের সিওয়া উপজাতির মধ্যে হোমসেক্সুয়ালিটি বা সমকামিতা শুধু সাধারণ বিষয়ই। দুই পুরুষ বা মহিলার মধ্যে জাঁকজমক করে দেওয়া হয়। 

** ব্রাজিলের মাহিনাকু গ্রামের লোকেরা পছন্দ মতো পার্টনার বেছে নেওয়ার জন্য খুল্লমখুল্লা অন্য লোকের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করেন।তবে কোনওরকম মারামারি নয়, উল্টে কে কত বড় মাছ উপহার দিতে পারবেন পছন্দের মহিলাকে তাই বিচার করা হয়।

** দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরের দ্বীপ মাঙ্গাইয়ায় বৃদ্ধারা ১৩ বছরের কম বয়সী ছেলেদের সঙ্গে সেক্স করেন।
উদ্দেশ্য? ছোটদের শেখানো কীভাবে পার্টনারকে খুশি করতে হয়।

** হাওয়াই দ্বীপে আবার প্রত্যেকেই নিজেদের জেনিটালের নামকরণ করেন। এমনকী ঈশ্বরের আরাধনার সময় নিজেদের যৌনাঙ্গের বিবরণ দেন। এটাই তাঁদের রীতি।

** ইন্দোনেশিয়ায় পণ উৎসবের সময় প্রত্যেক ব্যক্তিই তাঁদের স্ত্রী ছাড়া অন্য মহিলার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন।

** ছত্তিশগঢ়ের মুরিয়া উপজাতিরা মানুষেরা একটা বয়সের পর একাধিক পার্টনারের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক রাখেন। কোনও সম্পর্কই আবেগে বাঁধা পছন্দ করে না এই উপজাতি।

** গ্রিসের এক উপজাতির মধ্যেও সমকামিতা প্রাধান্য পায়। বয়স্ক পুরুষের সঙ্গে কিশোরদের শারীরিক সম্পর্ক সেখানে উদযাপিত হয়।

** আয়ারল্যান্ডের এক উপজাতির ধারণা পার্টনারের সঙ্গে সেক্স আদপে স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর। সে কারণে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের সময়েও অন্তর্বাস পরে থাকে পুরুষেরা।

** জীবন সঙ্গী বেছে নেওয়ার জন্য কম্বোডিয়ার ক্রেয়াঙ্গ উপজাতিতে মেয়েদেরই প্রাধান্য দেওয়া হয়। বিয়ের আগে ‘লাভ হাট’ তৈরি করে দেওয়া হয়। সেখানে প্রতিটি মেয়ে একাধিক পুরুষের সঙ্গে মিলিত হয়ে নিজেদের পার্টনার পছন্দ করেন।

** অতীতে এটা বিশ্বাস ছিল যে নিল নদ মিশরের দেবতা অটমের ইজাকুলেশনের ফলে সৃষ্ট। এই বিশ্বাস থেকেই ফারাওরা এই নদীতে স্বমেহন করতেন।

বিডিজার্নাল৩৬৫ডটকম// আরডি/ এসএমএইচ // ৬ মে ২০১৬

Share.

About Author

Comments are closed.