“শালা কান ধরে ১০ বার উঠ-বস কর”

0

বিডিজার্নাল প্রতিনিধি :

শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্ত স্বেচ্ছায় কান ধরে উঠ-বস করেছেন বলে সাংসদ সেলিম ওসমানের দাবী নাকচ করে দিয়েছেন সেই লাঞ্ছিত শিক্ষক। ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ায় তিনি জানান, সেদিন সেলিম ওসমান তার দুই গালে দুটি করে চারটি চড় মারেন। এরপর বলেন, “শালা কান ধর। ১০ বার উঠ-বস কর।”

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে সেলিম ওসমান সেই শিক্ষককে ‘তাঁরছিড়া’ হিসেবে সম্বোধন করেন। সেই সাথে তিনি তাকে প্রাণে বাঁচিয়েছেন বলে দাবী করেন। সেই সংবাদ সম্মেলনের পর খানপুর শহরে ৩০০ শয্যাবিশিষ্ট নারায়ণগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্ত একটি সংবাদপত্রকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন।

শিক্ষক শ্যামল কান্তি বলেন, সেদিনের পুরো ঘটনাই সাজানো। তিনি ইসলাম ধর্ম নিয়ে কোনো কটূক্তি করেননি। মসজিদের মাইকে উত্তেজনা ছড়ানো হচ্ছিল। সভার কথা শুনে তিনি স্কুলে যান। কিন্তু গিয়ে দেখেন পরিস্থিতি ভিন্ন। তিনি বলেন, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে স্থানীয় কয়েকজন আমাকে পেটায়। বিকেলে সেলিম ওসমান ঘটনাস্থলে আসেন। আমার শরীর তখন একেবারেই দুর্বল। যে ঘরে তাকে আটকে রাখা হয়েছিল, সাংসদ সেখানে ঢুকে কোনো কথা না বলে দুটি করে চারটি চড় মারেন। লজ্জায় তখন আমার মাথা হেঁট হয়ে যাচ্ছিল। এর পর ঘর থেকে বের করে সাংসদ লোকজনের সামনে এনে শিক্ষককে বলেন, ‘শালা কান ধর। ১০ বার উঠ-বস কর।’ জীবন বাঁচাতে তা করতে বাধ্য হই।

কেন এ রকম ঘটনা ঘটল—জানতে চাইলে শিক্ষক বলেন, আমি স্কুলটি দাঁড় করিয়েছি। কিছু লোকজন চাচ্ছিলেন আমি যেন স্কুলে না থাকতে পারি। তারাই ষড়যন্ত্র করেন।

যে সাংসদ শিক্ষকের গায়ে হাত তোলেন, তাকে যেন বরখাস্ত করা হয়-এই দাবী জানান শিক্ষক শ্যামল কান্তি। সরকারের তদন্ত কমিটি শিক্ষককে স্বপদে বহাল করেছে। শিক্ষক এ জন্য শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদসহ সবাইকে শত কোটি প্রণাম ও শ্রদ্ধা জানান।

বিডিজার্নাল৩৬৫ডটকম// আরডি/ এসএমএইচ // ১৯ মে ২০১৬

Share.

About Author

Comments are closed.