মাধ্যমিক শিক্ষার মান এখনো দুর্বল : অর্থমন্ত্রী

0

বিডিজার্নাল প্রতিনিধি :

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, বর্তমানে অবৈতনিক শিক্ষা রয়েছে উচ্চ মাধ্যমিক শ্রেণি পর্যন্ত। কিন্তু মাধ্যমিকে শিক্ষার মান এখনো দুর্বল। এ ক্ষেত্রে বড় দায়িত্ব নিতে হবে শিক্ষকদের। অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, আমাদের লক্ষ্য স্নাতক পর্যন্ত শিক্ষা অবৈতনিক করা। কিন্ত রাজস্বের অভাবে তা করতে পারছি না। প্রধানমন্ত্রী অনেক আগেই এটি করার উদ্যোগ নিলেও আমার কারণে হয়নি। তিনি বলেন, তিন-চার বছর পর অবৈতনিক শিক্ষা স্নাতক পর্যন্ত নেয়া হবে। 
বুধবার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। 
শিক্ষা মন্ত্রণালয় আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন শিক্ষা সচিব সোহরাব হাসান এবং মাধ্যমিক উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের(মাউশি’র) মহাপরিচালক অধ্যাপক ফাহিমা খাতুন। এর আগে বেলুন উড়িয়ে শিক্ষা সপ্তাহের উদ্বোধন করে অর্থ ও শিক্ষামন্ত্রী। 
বুধবার থেকে শুরু হওয়া শিক্ষা সপ্তাহ চলবে ২৮ মে পর্যন্ত। এ সপ্তাহের কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে, শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহনে ১৪টি বিষয় ভিত্তিক প্রতিযোগিতা। প্রতিযোগিতা উপজেলা থেকে জাতীয় পর্যায় পর্যন্ত চলবে। শুরুতেই অনুষ্ঠানস্থল থেকে একটি শোভাযাত্রায় শিক্ষামন্ত্রীসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। আগামী ২৮ মে’ ওসমানী স্মৃৃতি মিলনায়তনে সমাপনী অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। 
আগামী অর্থ বছরে শিক্ষায় বাজেট বরাদ্দের উল্লেখ করে অর্থমন্ত্রী বলেন, এখনো ১০ শতাংশ শিশু স্কুলে যেতে পারে না। এদের বেশির ভাগ প্রতিবন্ধী ও অনগ্রসর অঞ্চলের বাসিন্দা। এ সব শিশুকে স্কুলগামী করার জন্য আগামী বাজেটে বরাদ্দের ব্যবস্থা করছি। তিনি আরো বলেন, মাধ্যমিক শিক্ষা শতভাগ করার জন্য ৬৩ হাজার শ্রেণিকক্ষ বাড়ানো হবে এবং শিক্ষক নিয়োগ ও তাদের প্রশিক্ষণে বিপুল অর্থ প্রয়োজন হবে। এ খাতেও বরাদ্দ দেয়া হবে। এ ছাড়া অবকাঠামো খাতেও বরাদ্দ দেয়া হবে। 
অনুষ্ঠানে উপস্থিত শিক্ষার্থীদেরসহ সারাদেশের শিক্ষার্থীদের অর্থমন্ত্রী সবাইকে অন্তত মাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষা গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে বলেন, সমাজে অনেক বঞ্চিত, নিপীড়িত অসহায় আছে, তাদের টেনে তুলতে হবে। যাতে তারাও মাধ্যমিক পর্যন্ত শিক্ষা গ্রহণ করতে পারে। সরকার মাধ্যমিক স্তরে যে ব্যয় করে তার ফসল হচ্ছে তোমরা আগামীতে দেশকে নেতৃত্ব দেবে। 
শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে অর্থমন্ত্রী বলেন, প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি জ্ঞান আহরণের পদ্ধতিগুলো শিক্ষার্থীদের শিখিয়ে দিতে হবে। এটি বিশেষ করে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব। কারণ জ্ঞানের সাগরে যাওয়ার বিশেষ ব্যবস্থা প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষাই করে দেয়।
অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, গতানুগতিক উচ্চশিক্ষার বাইরে গবেষণায় গুরুত্ব দিতে হবে। দেশকে এগিয়ে নিতে ও বেকারত্ব দূর করতে কারিগরি শিক্ষায় গুরুত্ব দিয়েছে সরকার। ২০২০ সালের মধ্যে এটি ২০ শতাংশে উন্নীত করতে কাজ করা হচ্ছে।

বিডিজার্নাল৩৬৫ডটকম// আরডি/ এসএমএইচ // ২৫ মে ২০১৬

Share.

About Author

Comments are closed.