ঈদের পোশাক তৈরি করুন থান কাপড়ে

0

বিডিজার্নাল প্রতিনিধি :

লামিয়া এখন ভীষণ ব্যস্ত। কারণ সামনেই রমজান মাস। এমনিতেই সেই সময় ব্যস্ততা একটু বেশি থাকে, সেই সাথে থাকে ঈদের প্রস্তুতি। নতুন জামা, শাড়ি, জুতা ও গয়নাসহ কত কি কেনাকাটা করার থাকে। তাই এখনই যদি কিছুটা কেনাকাটা করে রাখা যায় তাহলে বেশ ভালো হয়। লামিয়া তাই ব্যস্ত তার ঈদের কেনাকাটায়। যারা কাপড় কিনে পোশাক তৈরি করেন তাদের জন্য এই সময়টা প্রস্তুতি নেয়ার জন্য সঠিক সময়।

অনেকেই থান কাপড় কিনে নিজস্ব ডিজাইনে ঈদের পোশাক তৈরি করে থাকেন। নিজের পছন্দের ডিজাইন ছাড়াও অনেকে পোশাকে করান নানা ধরনের কারু কাজ। যেমন নানা ধরনের এমব্রয়ডারি, কারচুপি, লেস বা ইয়োক বসানো, টাইডাই বা ব্লকের কাজও অনেকে করান তাই সময় একটু বেশি প্রয়োজন হয়। তা ছাড়া আগেভাগে অর্ডার না দিলে সময়মতো পোশাক হাতে না পাওয়ারও একটা আশঙ্কা থাকে। সবকিছু মিলিয়ে যারা থান কাপড় কিনে পোশাক তৈরি করাবেন তাদের জন্য সময় এখনই।
বিভিন্ন মার্কেট ঘুরে দেখা গেল, বাজারে প্রচুর থান বা গজ কাপড় পাওয়া যাচ্ছে। এক রঙা, প্রিন্ট, এমব্রয়ডারি, মেশিন এমব্রয়ডারি, টাইডাই, নেট, জর্জেট ও সিল্কসহ বিভিন্ন ধরনের কটন লিলেন প্রচুর থান বা গজ কাপড়ের সম্ভার রয়েছে মার্কেটগুলোতে।
জর্জেট কাপড়ের ওপর অলওভার গুজরাটি কাজ করা থান কাপড় পাওয়া যাচ্ছে। দাম পড়বে ৬০০-৭০০ টাকার মধ্যে। এবার নতুন আসা কাপড়গুলোর মধ্যে এটি উল্লেখযোগ্য। একই সাথে রয়েছে লক্ষ্ণৌ কাজের আনস্টিচ থ্রি পিস। দাম ৯০০ থেকে ৯৫০ টাকা। এগুলো সবই হাতের কাজ এবং কাজগুলো সত্যিই প্রশংসা করার মতো। রয়েছে নেট ও জর্জেটের ওপর মেশিন-এমব্রয়ডারি করা কাপড়। দাম পড়ছে ৫০০ থেকে ৭০০ টাকার মধ্যে। এ ছাড়াও সুতির ওপর নানা ধরনের স্টিচ করা কাপড়ও রয়েছে। এগুলোর দামও ৪০০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে। রেয়ন জর্জেটের মতো এক ধরনের ভারি জর্জেট কাপড় পাওয়া যাচ্ছে। বিভিন্ন ডিজাইনের প্রিন্টের এই কাপড়গুলো পাবেন ৩০০ থেকে ৪০০ টাকার মধ্যে। এ ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের ও রঙের জর্জেট কাপড় এ বছরও বাজারে বেশ চলছে। রয়েছে বিভিন্ন ধরনের সুতির কাপড়। প্রিন্টের নানা ধরনের সুতি কাপড়ের দাম শুরু ৭০ টাকা থেকে। কাপড়ের কোয়ালিটি অনুযায়ী প্রিন্টের সুতির দাম পড়বে ২৫০ টাকা পর্যন্ত। সুতির ওপর নানা ধরনের এমব্রয়ডারি করা কাপড়ও বাজারে প্রচুর। এ ছাড়া রয়েছে লিলেন। কোয়ালিটি ভেদে এক রঙা ও প্রিন্টেড লিলেনের দাম পড়বে ১৫০ থেকে ২৫০ টাকার মধ্যে।
এসব কাপড়ের পাশাপাশি দেশীয় সিল্কের কাপড় পাওয়া যাচ্ছে নানা ভ্যারাইটি ও কোয়ালিটিতে। ধানমন্ডির দোয়েল সিল্কের শোরুমে দেখা গেল নতুন অনেক ধরনের কাপড় এসেছে এবারের ঈদকে কেন্দ্র করে। তসর সিল্ক বিভিন্ন রঙ ও শেডে করা হয়েছে। দাম ১৫০ থেকে ১৮০ টাকা। রযেছে ধূপিয়ান। এগুলোর দাম ৪০০ থেকে ৬৫০ টাকা। এন্ডি কাপড়ের দাম ২০০ থেকে ৩০০ টাকার মধ্যে। এ ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের মসলিন, ব্লক করা, প্রিন্ট, স্ক্রিন প্রিন্টের গজ কাপড়ও রয়েছে। দাম পড়বে ৪০০ থেকে ৭০০ টাকার মধ্যে। পাঞ্জবির কাপড়ও রয়েছে ৩৫০ টাকা গজ দামে।
গজ কাপড় ছাড়াও প্রচুর আনস্ট্রিচ থ্রি পিস রয়েছে। এগুলো থেকেও বেছে নিতে পারেন আপনার ঈদের পোশাক। এ ছাড়াও বাজারে রয়েছে প্রচুর এক্সেসরিজ যেমন লেস, পুঁতি, ঝুমকা, স্টোন ইত্যাদি। পোশাকে বৈচিত্র্য আনতে এগুলোও অনেকে ব্যবহার করেন।
ঢাকা নিউ মার্কেট, চাঁদনি চক, গাউছিয়া, প্রিয়াঙ্গন মার্কেট, নবাববাড়ি মার্কেট, ইসলামপুর, গুলশান মার্কেট, মিরপুর শাহআলী মার্কেটসহ বিভিন্ন মার্কেট ও শপিংমলগুলোতে রয়েছে গজ কাপড়ের বিশাল সম্ভার।

বিডিজার্নাল৩৬৫ডটকম// আরডি/ এসএমএইচ // ২৮ মে ২০১৬

Share.

About Author

Comments are closed.