রাবিতে আবারও ছাত্রজোটের কর্মসূচিতে হামলা

0

তাপস কুমার সরকার,রাবি প্রতিনিধি:

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের পূর্বঘোষিত কর্মসূচিতে হামলা হয়েছে। হামলার জন্য ছাত্রলীগের সাবেক দুই নেতাকে দায়ী করেছেন জোটের নেতাকর্মীরা। আজ সোমবার সকালে প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান ধর্মঘট চলাকালে তারা হামলার শিকার হন। তবে এতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে জানা যায়, জোটের নেতাকর্মীরা সোমবার সকাল ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে অবস্থান নেন। ৮টা ১০ মিনিটে তারা ক্যাম্পাসে থেকে শহরমুখী বাস আটকে দেয়। সকাল ৯ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমানসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন কর্মকর্তা এবং ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মো. ইলিয়াস হোসেন ও ফিরোজ মাহমুদের নেতৃত্বে কয়েকজন নেতা সেখানে উপস্থিত হন। এ সময় তারা ছাত্রজোটের নেতাকর্মীদের সঙ্গে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে তারা ছাত্রজোটের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালালে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশের সহায়তায় ছাত্রজোটের নেতাকর্মীদের সেখান থেকে সরিয়ে দিলে বাস চলাচল স্বাভাবিক হয়।

ঘটনার প্রতিবাদে দুপুর ১২টার দিকে ছাত্রজোটের নেতাকর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে বিক্ষোভ-সমাবেশ করেন। সমাবেশ থেকে তারা ঢাবিতে নিপীড়নবিরোধী আন্দোলনে হামলায় তদন্ত সাপেক্ষে জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানায়। এছাড়া রাবির কর্মসূচিতে প্রশাসনের মদদে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও কর্মকর্তাদের হামলার নিন্দা জানান।

রাবি প্রগতিশীল ছাত্রজোটের আহ্বায়ক লিটন দাস বলেন, ‘ধর্মঘট সফল করতে আমরা সেখানে সকালের প্রথম ট্রিপের বাস বন্ধ করে দিই। পরবর্তী শিডিউলের বাস বন্ধ করার জন্য সেখানে অবস্থান করছিলাম। এসময় রাবির কয়েকজন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তারা আমাদের ওপর হামলা করে। এরপর প্রক্টর পুলিশ দিয়ে আমাদের সেখান থেকে সরিয়ে দেয়।’

রাবি ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘ ঘটনার সময় ওইদিক দিয়ে আমরা কয়েকজন যাচ্ছিলাম। প্রক্টরের সঙ্গে কয়েকজনের বাকবিতন্ডা দেখে এগিয়ে যাই। তারা প্রক্টরের সঙ্গে খুব খারাপ আচরণ করছিল। আমরা বিষয়টির প্রতিবাদ করে বাস চলাচল স্বাভাবিক করে দিয়েছি। কোন হামলা করা হয়নি।’

এ বিষয়ে প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘তারা পরিবহনের বাস বন্ধ করে রেখেছিল। আমি তাদের সহিংস রাজনীতি বাদ দিয়ে শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি করতে অনুরোধ জানাই। কিন্তু তারা সেটা মানেনি। এরপর আমাদের বাস বিকল্প রাস্তা দিয়ে ক্যাম্পাস ছেড়ে যায়। পরে তারাও সেখান থেকে চলে যায়।’#

Share.

About Author

Comments are closed.