নওগাঁর আত্রাইয়ে পরিতাক্ত অবস্থায় পাওয়া ৩/৪ দিনের নবজাতকের কে হবে বাবা, মা?

0

নওগাঁ প্রতিনিধি :

নওগাঁর আত্রাইয়ে পরিতাক্ত অবস্থায় পাওয়া নবজাতকের কে হবে বাবা, মা?। রবিবার দুপুর ১২টায় শিশুটিকে আদালতে হাজির করা হলে নওগাঁ শিশু আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মোঃ শরিফুল ইসলাম এ নির্দেশনা দেন,শিশুটিকে কোর্টে নিয়ে আসা আত্রাই থানার এসআই ফিরোজ মিয়া বলেন, গত ১৬ মে উপজেলার মহাদিঘী গ্রামের মৃত বেলাল হোসেনের স্ত্রী জোসনা বেওয়া রাজশাহীর জেলার মোহনপুর থেকে আত্রাইয়ে আসার পথে তুলশিক্ষেত্র মাঠে একটি নবজাতককে পড়ে থাকতে দেখে। শিশুটি কান্না করছিল। আশপাশে কেউ না থাকায় কাছে গিয়ে নবজাতকটি উঠিয়ে নিয়ে নিজ বাড়িতে চলে আসেন। এদিকে বিষয়টি জানাজানি হলে আত্রাই থানা পুলিশ শিশুটিকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। শিশুটি পুরোপুরি সুস্থ্য হলে রবিবার দুপুরে নওগাঁর শিশু আদালতে হাজির করা হয়। বর্তমানে আত্রাইয়ে পরিতাক্ত অবস্থায় নবজাতকের স্থান হয়েছে রাজশাহী ছোট মণি শিশু নিবাসে, ইতিমধ্যে শিশুটিকে দত্তক নেয়ার জন্য আত্রাইয়ের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ফখরুল বারীর আদালতে আবেদন করেন। ফখরুল বারীর আইনজীবি এ্যাড. মোঃ ওমর ফারুক (সুমন) এর কাছ থেকে জানতে চাইলে তিনি বলেন আদালত যদি এই শিশুটির প্রকৃত পিতা মাতা না পাওয়া গেলে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ফখরুল বারী শিশুটিকে দত্তক নিতে চায় । তবে আরো অনেকে নওগাঁ জজ কোর্টের আইনজীবি এ্যাড. মনসুর আলীসহ কয়েকজন কোর্টের নিকট আবেদন করেন। আদালত শিশুটিকে প্রত্যক্ষ ও পরিস্থিতি অনুধাবন করেন এবং শিশুটির কোন ওয়ারিশ পাওয়া যায় কিনা সে পর্যন্ত তাকে রাজশাহী ছোট মণি শিশু নিবাসে রাখার নির্দেশ প্রদান করা হয়। নবজাতকে পাওয়া মহিলা জোসনা বেওয়া বলেন, মাঠের মধ্যে কাঁথায় জড়িয়ে রাখা বাচ্চাটি একা একা কান্না করছিল। এসময় আশপাশে কেউ ছিলনা। মানবিক দিক বিবেচনা করে বাচ্চাটিকে নিয়ে আসি। এরপর থানা পুলিশকে বিষয়টি জানানো হয়। বাচ্চাটিকে হাসপাতালে চিকিৎসা দিয়ে নওগাঁ কোর্টে নিয়ে আসা হয়। এখন পর্যন্ত বাচ্চার অভিভাবকের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।

Share.

About Author

Comments are closed.