কারাগারে হিরো আলম

0

নিজস্ব প্রতিবেদক:

কারাগারে পাঠানো হয়েছে আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলমকে। যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী নির্যাতনের মামলায় বুধবার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। বৃহস্পতিবার হিরো আলমকে বগুড়ার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে হাজির করা হলে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।
বৃহস্পতিবার দুপুরে সদর থানার হাজতখানা থেকে হিরো আলমকে আদালতে নেয়া হয়। এরপর তাকে অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শাহরিয়ার তারিকের এজলাসে হাজির করে পুলিশ। হিরো আলমের আইনজীবীরা তার জামিন আবেদন করলে বিচারক শুনানি শেষে তা নাকচ করে দেন।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তদন্তকাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত আসামি হিরো আলমকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন জানালে বিচারক সেটি মঞ্জুর করে বগুড়া জেলা কারাগারে পাঠানো হয় হিরো আলমকে।
গত বছরের ২৫ ডিসেম্বর ও গেল মঙ্গলবার যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী সুমী বেগমকে দুই দফা নির্যাতন করেন হিরো আলম-এমন অভিযোগে বুধবার বিকেলে বগুড়া সদর থানায় মামলা দায়ের করেন সুমীর বাবা সাইফুল ইসলাম। ওইদিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে হিরো আলম নিজেই থানায় আসেন এবং স্ত্রীর সঙ্গে দাম্পত্য কলহের জেরে শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে মারপিট করেছে এমন অভিযোগ করেন। তার অভিযোগের সত্যতা না পাওয়ায় ওই রাতেই তাকে তার শ্বশুরের দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সদর থানার উপ-পরিদর্শক রহিম উদ্দিন  অনলাইনকে জানান, হিরো আলমের বিরুদ্ধে এটিই প্রথম মামলা নয়। এর আগে ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল বগুড়া সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের একটি মামলায় (মামলা নং-৩০,তারিখ-১৮-০৪-১২) তিনি এজাহারনামী আসামি।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হিরো আলম ২০১২ সালে তার স্ত্রীর ছোট বোনকে নিয়ে পালিয়ে যায়। ওই সময় তার শ্বশুর হিরো আলমের নামে থানায় অপহরণ মামলা করে। পরে স্থানীয়ভাবে মামলাটি মীমাংসা করা হয়।
তবে হিরো আলম তার শ্যালিকাকে অপহরণের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আমার শ্বশুর টাকা হাতিয়ে নেয়ার উদ্দেশে মিথ্যা মামলা করেছিল। এবারও আমার ডিস সংযোগ ব্যবসা হাতিয়ে নেয়ার উদ্দেশে আমার বউকে ব্যবহার করে মিথ্যা মামলা করেছেন।
তিনি আরও বলেন, পরকীয়া করার অপরাধে বউকে চড় থাপ্পড় মেরে শাসন করেছি। এ কারণে আমার শ্বশুর তার লোকজন নিয়ে এসে আমাকে কাঠের বাটাম দিয়ে মারধর করে। থানায় অভিযোগ দিয়েও কোনও বিচার পাইনি। বরং মীমাংসার কথা বলে থানায় ডেকে এনে পুলিশ আমাকে গ্রেপ্তার করে।
বগুড়া সদরের এরুলিয়া এলাকার ক্যাবল-সংযোগ ব্যবসায়ী আশরাফুল হোসেন আলম কয়েক বছর আগে বিভিন্ন মিউজিক ভিডিওতে অভিনয়ের মাধ্যমে ইউটিউবে ‘হিরো আলম’ নামে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পান। গত সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-৪ আসনে সংসদ সদস্য প্রার্থী হয়ে সারাদেশে আলোচনায় আসেন তিনি। তবে শেষ পর্যন্ত ওই নির্বাচনে ৬৩৮ ভোট পেয়ে জামানত হারান হিরো আলম। ২০০৮ সালে সুমী বেগমকে বিয়ে করেন তিনি। তাদের সংসারে দুই কন্যা ও এক পুত্র সন্তান রয়েছে।

নিলা চাকমা/এসএমএইচ/   বৃহস্পতিবার, ৭ মার্চ ২০১৯, ২৩ ফাল্গুন ১৪২৫

Share.

About Author

Comments are closed.