আবরারের জিনিসপত্র নিতে এসে মূর্ছা যাচ্ছিলেন ছোট ভাই

0

নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতার হাতে খুন হওয়া বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদের হলে থাকা বইপত্র ও জামা-কাপড়সহ সবকিছু তার বাবার কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।

বুধবার (৩০ অক্টোবর) সকালে আবরারের বাবা বরকত উল্লাহ ও তাঁর ছোট আবরার ফাইয়াজ এসব জিনিসপত্র বুঝে নেন।

আবরারের শোকাহত বাবা বরকত উল্লাহ বলেন, ২০১৮ সালের ৩১ মার্চ আবরার ফাহাদ প্রথম বুয়েটের শেরে বাংলা হলে ওঠে। আর ২০১৯ সালের ৩০ অক্টোবর ছেলেকে ছাড়াই সবকিছু নিয়ে যেতে হচ্ছে। আবরারের ব্যবহৃত ট্যাংক, বইপত্র ও জামাকাপড় নেয়া হয়। তবে কিছু বই পাওয়া যায়নি। এগুলো পাঠ্যবইয়ের বাইরে আবরার পড়ত। এছাড়া ল্যাপটপ ও মোবাইলফোন পুলিশের কাছে আছে। সেগুলো আদালতের মাধ্যমে নিতে হবে।

আবরারের ফুপাতো বোন আফরিদা পারভীন লিজা বলেন, ছোট ভাই ফাইয়াজের জন্য একটি শার্ট কিনেছিল আবরার। শার্টটি তার রুমেই ছিল। ফাইয়াজ শার্টটি দেখেই কান্নায় ভেঙে পড়েন। বারবার শার্টটি ধরে দেখছিল আর তখন ফাইয়াজের মুখটা কান্নায় ভরে যাচ্ছিল।

আবরারের জিনিসপত্রগুলো বস্তায় ভরে একটি কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে কুষ্টিয়ায় পাঠানো হয়।

উল্লেখ্য, গত ৬ অক্টোবর রাতে ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতার নির্মম নির্যাতনে নিহত হন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ। শেরেবাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে বেধড়ক মারপিট করে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। পিটুনির সময় নিহত আবরারকে ‘শিবিরকর্মী’ হিসেবে চিহ্নিত করার চেষ্টা চালায় খুনিরা।

বৃহস্পতিবার, ৩১ অক্টোবর ২০১৯, ১৫ কার্তিক ১৪২৬

Share.

About Author

Comments are closed.