অবৈধ টাকা বানানো একটা রোগ: প্রধানমন্ত্রী

0

জার্নাল প্রতিবেদক:

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, যে একবার টাকা বানাতে থাকে তার বারবার টাকা বানাতে ইচ্ছে করে। আসলে টাকা বানানো একটা রোগ, এটা একটা অসুস্থতা। কিন্তু এ টাকায় শান্তিতে ঘুমানো যায় না।আজ শনিবার (৩০ নভেম্বর) ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, কেউ অবৈধভাবে টাকা উপার্জন করে বিলাসবহুল জীবন যাপন করবেন আর কেউ সৎভাবে জীবন যাপন করে তার জীবনটা নিয়ে কষ্ট পাবেন, তা হতে পারে না। অবৈধভাবে উপার্জিত অর্থ দিয়ে বিরিয়ানি পোলাও খাওয়া আর ব্র্যান্ড পরা থেকে সাদাসিধে জীবনযাপন করা অনেক সম্মানের।  শান্তিতে ঘুমানো যাবে।তিনি বলেন, টাকার পেছনে ছুটতে ছুটতে তো নিজের পরিবার ধ্বংসের দিকে যাচ্ছে। কিন্তু ওই টাকার ফলে ছেলে-মেয়ে বিপথে যাবে। পড়াশোনা নষ্ট হবে, মাদকাসক্ত হবে। সেগুলো দেখার সময় নাই। এই ধরনের একটা সামাজিক অবস্থা আমরা চাই না। সৎ পথে কামাই করে যে থাকবে সে সমাজে সম্মান পাবে।প্রধানমন্ত্রী বলেন, চোরা টাকা, দুর্নীতির টাকা নিয়ে যতই বিলাসিতা করুক মানুষ মুখে হয়তো বাহবা দিবে, পেছনে একটা গালিও দিবে। এই কথাটা মনে রাখতে হবে, জাতির পিতা সারাজীবন সাদাসিধে জীবনযাপন করে গেছেন। কাজেই আপনারা যারা তার আদর্শের সৈনিক সেই অনুযায়ী চলতে হবে।নগরবাসীকে উদ্দেশ্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পানি ও বিদুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হতে হবে। চারপাশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।শেখ হাসিনা বলেন, বিএনপি জামায়াত জোট সারা দেশে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিল। বিএনপির আমলে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ভয়ে ঘরে থাকতে পারেননি।বিএনপির সময় বিদ্যুৎ উৎপাদন দুর্নীতির কারণে কমে গিয়েছিল। আমরা এসে বিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়েছি। তাদের কাজই হলো দুর্নীতি করা, লুটপাট করা আর মানুষকে নির্যাতন করা। হাওয়া ভবন খুলে লুটপাট করার সুযোগ তৈরি করা হয়েছিল।তিনি আরও বলেন, বিদেশ থেকে এতিমের টাকা এসেছিল, সেই টাকা চলে গেল খালেদা জিয়ার অ্যাকাউন্টে। সেই মামলায় খালেদা জিয়া এখন জেল খাটছেন। তার ছেলেও দশ ট্রাক অস্ত্র মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি।প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ যেন উঠে দাঁড়াতে না পারে, সে চেষ্টা করেছিল বিএনপি। খালেদা জিয়ার নির্দেশে সারা দেশে আওয়ামী লীগ নেতাদের ওপর অত্যাচার করা হয়। এর আগে সকাল ১১টার দিকে রাজধানীর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর পর সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়।

বিডি জার্নাল/আর ডি

Share.

About Author

Comments are closed.