চট্টগ্রামের চার ফ্লাইওভার চসিককে হস্তান্তর করল সিডিএ

0

নিজস্ব প্রতিবেদক :

চট্টগ্রাম নগরীর যানজট নিরসনে ৯২৭ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যয়ে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) নির্মিত চারটি ফ্লাইওভার রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

গতকাল বিকেলে নগরের টাইগারপাসে চসিকের সম্মেলন কক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে চারটি স্থাপনা হস্তান্তর করা হয়। এ সময় চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন ও  চউক চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় মেয়র সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, চউক এ নগরে ভিন্ন ভিন্ন সময়ে ৪টি ফ্লাইওভার নির্মাণ করেছিল। এগুলো হচ্ছে- আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভার, এমএ মান্নান ফ্লাইওভার, কদমতলী ও দেওয়ানহাট ওভারপাস। গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্তের আলোকে আনুষ্ঠানিকভাবে এসব ফ্লাইওভার রক্ষণাবেক্ষণের জন্য চসিকের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে। এগুলো আমরা রক্ষণাবেক্ষণ করবো।

তিনি বলেন, হস্তান্তরের আগে উভয় প্রতিষ্ঠানের টিম আলাদা আলাদাভাবে সার্ভে করেছে। চউকের মেইনটেইনেস সক্ষমতা নেই। আইনেরও বাধ্যবাধকতা আছে। কদমতলী ও বহদ্দারহাট ফ্লাইওভারে আমাদের কিছু সংস্কার কাজ করতে হবে। উপরেও করতে হবে, নিচেও করতে হবে। যত দ্রুত সম্ভব আমরা কাজগুলো করবো।

চউক চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ বলেন, আমি চেয়ারম্যান হওয়ার পর নতুন একটি অ্যাক্টে দেখলাম- সিডিএ সরকারের একটি মন্ত্রণালয়ের উন্নয়ন সংস্থা। নিয়ম হচ্ছে সরকার সিডিএর মাধ্যমে সরাসরি উন্নয়ন কাজ করে। কোনো প্রকল্প করার পর স্থানীয় সরকার বিভাগের সংস্থা সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, জেলা পরিষদকে হস্তান্তর করার নিয়ম রয়েছে। আমি দেখলাম ৪টি ফ্লাইওভার নির্মাণের ২-৩ বছর হয়ে গেছে। হস্তান্তর করা হয়নি। মন্ত্রণালয়ে চিঠি লিখলাম। মন্ত্রণালয় সভা ডাকলো। মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত দিয়েছে-চসিককে হস্তান্তর করার। এরপর আমরা চসিককে চিঠি দিই। আজ (রবিবার) আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করা হচ্ছে।

চসিক ও সিডিএ সূত্রে জানা যায়, গত ১৬ নভেম্বর থেকে তিন দিন সিডিএ’র প্রকৌশল, মেকানিক্যাল, বিদ্যুৎ বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট বিভাগ ওই চারটি ফ্লাইওভার সবদিক থেকে ঠিকঠাক আছে কিনা তা পুনঃপরিদর্শন করে চূড়ান্ত করে। পরে ১ ডিসেম্বর হস্তান্তর আনুষ্ঠানিকতার দিন নির্ধারণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামশুদ্দোহা, দুই সংস্থার প্রধান প্রকৌশলী, চউকের প্রকল্প পরিচালক মাহফুজুর রহমানসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, গত ৯ অক্টোবর গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের সভাপতিত্বে এক বৈঠকে সংস্থার আওতাধীন সিডিএর অধীনে বাস্তবায়িত আখতারুজ্জামান ফ্লাইওভার, বহদ্দারহাটের এম এ মান্নান ফ্লাইওভার, কদমতলী জংশনের ফ্লাইওভার ও দেওয়ানহাট ওভারপাসটি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য চসিকের কাছে হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বৈঠকে চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, সিডিএর চেয়ারম্যান এম জহিরুল আলম দোভাষসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থার ঊর্ধ্বতন প্রকৌশলী ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিডিজার্নাল/আরডি

Share.

About Author

Comments are closed.