বাঁশখালীতে বেড়িবাঁধ নির্মানে অনিয়ম!

0

জসিম উদ্দিন, বাঁশখালী প্রতিনিধি : 

চট্টগ্রামের বাঁশখালীর উপকূলীয় এলাকায় বর্তমান সময়ে ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাস থেকে পরিত্রান পাওয়ার একমাত্র ভরসা বেড়িবাঁধ। শত কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে এই বেড়িবাঁধ। স্থানীয় জনগণের নানা সহয়োগিতায় এবং স্থানীয় সাংসদ মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরীর একান্ত পরিশ্রমে বাঁশখালীবাসি পেয়েছে তাদের দীর্ঘদিনের লালিত স্বপ্নের বেড়িবাঁধ।

তবে এ বেড়িবাঁধের কাজ শেষ হতে না হতেই বাঁশখালীর প্রেমাশিয়া ও খান-খানাবাদ এলাকায় স্থানীয় প্রভাবশালী লোকজন বেড়িবাঁধের গোড়া থেকে মাটি উত্তোলন শুরু করেছে। যার ফলশ্রুতিতে যেকোনো সময় বেড়িবাঁধটি ধ্বসে পড়ার আশংকা রয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, বেড়িবাঁধ উচু করার জন্য স্কেবেটর দিয়ে বেড়িবাঁধ এর নিচ থেকে মাটি খনন করছে। স্কেবেটরের ড্রাইভার প্রথমে ক্যামেরা  দেখে কাজ বন্ধ করে চলে যায়। এলাকার লোকজন বাধা দিলে সে কাজ না করে স্কেবেটর ফেলে চলে যাবে বলে হুমকি দেয়।

এক প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, সম্প্রতি কয়েকদিন আগে বেড়িবাঁধ ধসে পডে যায়। এলাকার লোকজনের সহায়তা নিয়ে আমরা পূনরায় মেরামত করি। সরকারি ভাবে বেঁড়িবাধ নির্মানের ক্ষেত্রে একশত ফিট কাছ থেকে মাটি খননে বাধা থাকলেও কোন কিছুতে তোয়াক্কা না করে বেড়িবাঁধের একদম কাছ থেকে মাটি খনন করে নির্মান করছে। যার ফলে যে কোন সময় এই বেড়িবাঁধ ধসে পড়তে পারে। আমাদের দাবি যে কোন উপায়ে সুষ্ঠুভাবে এই বেড়িবাঁধ নির্মাণ করে যেতে হবে নইলে আমরা সাগর উপকূলীয় এলাকার লোকজন ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করতে হবে।

এ ব্যাপারে বাঁশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোমেনা আক্তার বলেন,  আমি গত সপ্তাহে বেড়িবাঁধ ভিজিট করেছিলাম। তখন স্থানীয় ঠিকাদারসহ সবাই উপস্থিত ছিল। বেড়িবাঁধ এর কাছ থেকে মাটি খননের দৃশ্য আমি দেখি নাই। আপনি যেহেতু বলেছেন আমি জিনিসটা দেখবো। যদি ওরকম কিছু হয় তাহলে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে বলবো এবং সেই সাথে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

বিডিজার্নাল/আরডি

Share.

About Author

Comments are closed.