ধামইরহাটে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে স্বামী-স্ত্রীকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ

0

নওগাঁ প্রতিনিধি:
নওগাঁর ধামইরহাটে কাবিননামা যাচাই-বাচাইয়ের নামে বাসা থেকে ডেকে এনে এক দম্পত্তিকে মারপিট করে আহত করার অভিযোগ উঠেছে খেলনা ইউপি চেয়ারম্যান ও আ’লীগ নেতা আব্দুস ছালামের বিরুদ্ধে। গত সোমবার বিকেলে উপজেলার খেলনা ইউনিয়ন পরিষদে এই মারপিট করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটানোর পর চেয়ারম্যান নিজেকে বাঁচাতে রক্তাক্ত অবস্থায় গ্রাম পুলিশ দিয়ে থানায় পাঠিয়েছেন।
দম্পত্তিরা হলেন, শিশু গ্রামের মৃত দারেশ উদ্দিনের ছেলে জামাল হোসেন (৩৫) ও জামাল হোসেনের স্ত্রী হাসনাহেনা লতা (২৫)।
স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, খেলনা ইউনিয়নের গপিরাম পুর গ্রামের হাফিজুল ইসলামের মেয়ে হাসনাহেনা লতা তার পূর্বের স্বামীকে আইন মোতাবেক তালাক দিয়ে জামাল হোসেনকে প্রায় ৫ মাস আগে আদালতের মাধ্যমে বিয়ে করেন। সোমবার বিকেলে খেলনা ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস ছালামের নির্দেশে গ্রাম পুলিশ সাইদুল বিরেন ও শাহানাজ হেলা ঐ দম্পত্তির বাড়ি শিশু গ্রামে গিয়ে দম্পতিকে ইউনিয়ন পরিষদে ধরে আনেন। পরিষদের হল রুমে নিয়ে আসা মাত্রই গ্রাম পুলিশের পাশাপাশি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম লাঠি দিয়ে জামাল হোসেনকে এলোপাতাড়ী মারপিট করেন। এতে হাত-পায়ে রক্তাক্ত জখম হন। মারপিটে জামালের শরীরের বিভিন্ন অংশ ফেটে রক্ত বের হতে থাকে। অবস্থা বেগতি দেখে দ্রুত চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম গ্রাম পুলিশ দিয়ে তাদেরতে থানায় পাঠিয়েছেন।
গৃহবধু হাসনা হেনা লতা জানান, মহিলা গ্রাম পুলিশ শাহানাজ এবং ইউপি চেয়ারম্যান নিজে তাকে ও তার স্বামীকে ঘরে ঢুকিয়ে লাঠি ও রড দিয়ে বেধরক মারপিট করেন। এতে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফেটে রক্ত বের হয়।
আহত জামাল হোসেন জানান, চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম আ’লীগ নেতা হওয়ায় তার ভয়ে কেউ কথা বলার সাহস পান না। তার অত্যাচার ও নির্যাতনে এলাকাবাসি অতিষ্ঠ। আগেও তার মতো অনেককে মারপিট করে আহত করেছেন। এর সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।
মারপিট করার কথা গ্রাম পুলিশ শাহানাজ স্বীকার করে বলেন, চেয়ারম্যানের নির্দেশে মারপিট করা হয়েছে।
ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম বলেন, তাদের বিবাহের ত্রুটি আছে জন্যই মারপিট করেছি। কি হবে হোক।
ধামইরহাট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রকিবুল ইসলাম জানান, সবার আগে জখমীদের চিকিৎসা প্রয়োজন। মারপিট করা কোন ভাবেই উচিত হয়নি। মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। ঘটনা তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি আরো বলেন, এলাকাবাসিদেরকে মারপিটের অভিযোগ রয়েছে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।
কাওছার আক্তার মুক্তা // এসএমএইচ// মঙ্গলবার, ২৯ আগস্ট ২০১৭। ১৪ ভাদ্র ১৪২৪

Share.

About Author

Comments are closed.